মেয়র ব্লাজিও’র ইফতারে বাংলাদেশি নেতৃবৃন্দ

নিউইয়র্ক সিটির মেয়র মেয়র ব্লাজিও বাংলাদেশিসহ মুসলিম নেতৃবৃন্দের সম্মানে এক ইফতার মহফিলের আয়োজন করেন। গত মঙ্গলবার, ২১শে জুন মেয়র মেয়র ব্লাজিও’র বাসভবন গ্রেসি মেনশনে আয়োজিত ইফতার ও ডিনার অনুষ্ঠানে বিভিন্ন মুসলিম কমিউনিটি থেকে আমন্ত্রিত প্রায় দেড় শতাধিক নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশি কমিউনিটির নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণ ছিল উল্লেখযোগ্য। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ছিলেন, ব্রঙ্কস এর বাংলাদেশী আমেরিকান কমিউনিটি কাউন্সিল এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোহাম্মদ এন মজুমদার, সাউথ এশিয়ান আমেরিকান ভয়েজ এর সভাপতি এবং কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার মোহাম্মদ তুহিন, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টার এর সভাপতি ডা: ওয়াহিদুর রহমান, ইকনা’র জেনারেল সেক্রেটারি তারিকুর রহমান, সাউথ এশিয়ান আমেরিকান ভয়েস এর বোর্ড মেম্বার ও ইউনিয়ন লিডার শফিকুর রহমান মিলন, জুডিশিয়াল ডেলিগেট (ইডি২৪) মোহাম্মদ শাবুল উদ্দিন, বাংলাদেশ সোসাইটির সহসভাপতি ওসমান চৌধুরি, বাংলাদেশ এডভোকেসি গ্রুপের বোর্ড মেম্বার শাহানা মাসুম, ম্যানহাটান বোরোর কমিউনিটি এক্টিভিষ্ট এম বারি খান, মুসলিম উম্মাহ অব নর্থ আমেরিকা (মুনা) ’র নেতা মীর মাসুম আলী ও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ প্রমূখ।
মাগরিবের নামাজের পূর্বে মেয়র এর কমিউনিটি এ্যাফেয়ার্স এর সিনিয়র এডভাইজর সারাহ্ সাইদ আমন্ত্রিত অতিথিদের স্বাগত জানান। এরপর মাগরিব এর আজান দেয়া হলে অতিথিরা খেজুর ও পানি খেয়ে মেয়রের বাড়ির মাঠে ম্যানহাটন মিডটাউন এর ইমাম শেখ আহমেদ ডিওডার এর ইমামতিতে জামাতে নামায আদায় করেন। নামাজ শেষে মুখরোচক খাবার পরিবেশনের সময় সারাহ্ সাইদ মেয়রের পতিœ শালের্ন মেকক্রেকে পরিচয় করিয়ে দেন। ফার্ষ্ট লেডি তার বক্তব্যে মানসিক রোগীদের নিয়ে তার কর্মতৎপরতা তুলে ধরেন। সে প্রসঙ্গে বিভিন্ন ইসলামিক সেন্টারে তাকে যেতে হয় এবং মুসলমানদের সাথে তার যে সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়েছে, তার প্রতি আলোকপাত করেন। ইসলাম ধর্মে বৈষম্যের কোন স্থান নেই, সেইজন্য ইসলাম ধর্মের প্রতি তার গভীর শ্রদ্ধা ব্যক্ত করেন। তার বাসভবনে আসার জন্য তিনি সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
মেয়র ব্লাজিও তার বক্তব্যে নিউইয়র্ক সিটির সার্বিক উন্নয়নে মুসলমানদের ভ’মিকার প্রশংসা করেন। মুসলমান ধর্ম যে শান্তির ধর্ম, তার উদাহরণ দিতে পবিত্র কোরআন থেকে একটি আয়াত ইংরেজিতে তিনি পড়ে শোনান। বক্তব্যের এক পর্যায়ে মেয়র বলেন, নিউইয়র্ক সিটির মেয়রদের মধ্যে তিনিই প্রথম, যিনি সিটির অন্যান্য নাগরিকদের সাথে সাথে মুসলমানদের নাগরিকদের সমঅধিকার প্রদানে সচেষ্ট। সেজন্যই, পুলিশ ডিপার্টমেন্ট দ্বারা মুসলমানদের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তি বন্ধ করেন। তাছাড়াও সিটির পাবলিক স্কুলের মুসলমান ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বছরে দুটি ঈদের ছুটি বরাদ্দ করেছেন। সিটির মুসলিম নাগরিকরা যাতে অহেতুক হয়রানির শিকার না হন, সেজন্য তিনি বলিষ্ঠ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে আশ^াস দেন। বক্তব্য শেষে মেয়র প্রতিটি টেবিলে এসে সবার সাথে কুশল বিনিময় করেন।
অনুষ্ঠানে অন্যান্য কমিউনিটির মুসলিম নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টার এর ইমাম শামসি আলি, মুসলিম কমিউনিটি নেটওয়ার্ক এর ডেবি আল মুনতাসির, নাজি আল মুনতাসির, প্রাক্তন মুসলিম সিটি কাউন্সিল মেম্বার রবার্ট জেকসন, লিন্ডা সারসুর প্রমূখ। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের মুসলিম কর্মকর্তাবৃন্দ এবং মেয়র এর বিভিন্ন এজেন্সীর কমিশনারগণ।

You Might Also Like