নূর হোসেন ও অভিযুক্ত র‌্যাব কর্মকর্তাদের সম্পদ অনুসন্ধান করবে দুদক

নারায়ণগঞ্জে চাঞ্চল্যকর ৭ হত্যাকাণ্ড মামলার প্রধান আসমি নূর হোসেন ও অভিযুক্ত র‌্যাবের ৩ কর্মকর্তার অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধান করবে দুদক। আজ বুধবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত মাসিক প্রেস ব্রিফিংয়ে কমিশনের সচিব মো. ফয়জুর রহমান চৌধুরী এ কথা জানান।

অভিযুক্ত র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মাদ, সাবেক অধিনায়ক মেজর আরিফ হোসেন ও লে. কমান্ডার এম এম রানার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত কোনো সম্পদ রয়েছে কিনা তা যাচাই করবে কমিশন।

মো. ফয়জুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘আমরা নূর হোসেনের সম্পদের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি। এছাড়া র‌্যাবের ওই ৩ কর্মকর্তার সম্পদের বিষয়ে খোঁজ-খরব নেওয়া হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জের ওই হত্যাকাণ্ডের পেছনে কোন আর্থিক লেনদেন হলে তা অবশ্যই দুদক খতিয়ে দেখবে।’

হলমার্ক কেলেঙ্কারির নন-ফান্ডেড অংশের অনুসন্ধান প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কমিশনের সচিব বলেন, ‘আমরা আপাতত এ অনুসন্ধান করছি না। ব্যাংকের টাকা আদায়ে সুবিধার্থেই আমরা এ অনুসন্ধান বন্ধ রেখেছি। ব্যাংক যদি অর্থ আদায় করতে না পারে তাহলে ব্যাংকেই মামলা করবে। পরবর্তী সময়ে আমরা ওই মামলা সরাসরি তদন্ত করব।’

প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, এপ্রিল মাসে ৮৭৮টি অভিযোগ কমিশনে জমা পড়েছে। এর মধ্যে ১১৩টি অভিযোগ অনুসন্ধানের জন্য গৃহীত হয়েছে। এপ্রিল মাসে ১২টি মামলার অনুমোদন দিয়েছে কমিশন। এ ছাড়া ওই মাসে ১৭টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। যেখানে আটটি মামলায় সাজা ও নয়টি মামলায় অসামিরা খালাম পেয়েছে।

You Might Also Like