উত্তর আমেরিকায় যাত্রী সেবায় আসছে উড়াল

নিউইয়র্ক : নিউইয়র্ক তথা উত্তর আমেরিকায় যাত্রী সেবায় নতুন সংযোজন হতে চলেছে ‘উড়াল’ টেক ইন্্ক নামক ট্যাক্সি এন্ড লিমোজিন মাল্টি সার্ভিসেস প্রতিষ্ঠান। যাত্রী সেবার পাাপাশি ড্রাইভার্সদের স্বার্থ রক্ষা আর সকল ড্রাইভার্সদের একই পতাকার নীচে ঐক্যবদ্ধ করাই উড়াল-এর মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। উদ্যোক্তাদের ভাষায়- বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছে ট্যাক্সি এন্ড লিমোজিন ড্রাইভাররা নানাভাবে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত, অবহেলিত তথা দাসত্বের শিকার। এই দাসত্ব প্রথা থেকে তাদেরকে মুক্ত করে ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই।
জেএফকে বিমানবন্দর সংলগ্ন রকওয়ে বুলেভার্ডস্থ প্রতিষ্ঠানটির অফিসে ১৬ মে সোমবার দুপুরে আয়োজিত এক সংবাদিক সম্মেলনে ‘উড়াল’ টেক ইন্্ক’র উদ্যোক্তারা উপরোক্ত তথ্য জানান। সাংবাদিক সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানটি এবং এর যাত্রী সেবা সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন ‘উড়াল’ টেক ইন্্ক-এর প্রেসিডেন্ট ও সিইও ফারুক হোসাইন। পরবর্তীতে অন্যান্য উদ্যোক্তরা উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। খবর ইউএনএ’র।
সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, ‘উড়াল’ টেক ইন্্ক’র উদ্যোক্তা মূলত: ১৭ জন বাংলাদেশী হলেও এই প্রতিষ্ঠানের সাথে সংশ্লিস্ট সকল ড্রাইভারই উড়াল-এর ট্রার্ম এন্ড কন্ডিশনের আওতায় সকল সুযোগ-সুবিধাও পাবেন। বাংলাদেশী ড্রাইভার্স ছাড়াও ভারতীয়, পাকিস্তানী, নেপালী প্রভৃতি দেশের ড্রাইভার্সদের উড়াল-এর পতাকালে তলে ঐক্যবদ্ধ করার প্রক্রিয়া চলছে এবং এব্যাপারে আশানুরূপ সাফল্য পাওয়া যাচ্ছে। উড়াল’র সাথে এ পর্যন্ত নিউইয়র্কের প্রায় দুই হাজার ড্রাইভার যুক্ত হয়েছেন এবং আগামী দুই মাসের মধ্যে পাঁচ হাজার ড্রাইভার সম্পৃক্ত করার টার্গেট নেয়া হয়েছে। এই লক্ষ্যমাত্র অর্জিত হলেই উড়াল আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রী সেবা পরিচালনা করবেন বলেও সাংবাদিক সম্মেলনে জানানো হয়। তবে ইচ্ছে করলে উড়াল এখন থেকেই যাত্রী সেবা দিতে পারে। সে প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। তারপরও সবদিক দিয়ে পরিপূর্ণ হয়েই উড়াল যাত্রী সেবায় যুক্ত হতে চায়।

সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, নিউইয়র্কসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অ্যাপস’র মাধ্যমে জনপ্রিয় কার সার্ভিস উবার, লিফট প্রভৃতি কোম্পানীর মতোই উড়াল পরিচালিত হবে। তবে উড়াল’র বিশেষত্ব হবে ‘কম ভাড়ায় ড্রাইভার্সদের কাছ থেকে নামমাত্র সার্ভিস সার্জ গ্রহণ। প্রাথমিকভাবে এই সার্জ চার্জ হবে শতকরা ১০ ডলার। উড়াল-এর নেতৃবৃন্দ বলেন, যাত্রী সেবার সাথে জড়িত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বর্তমানে ড্রাভার্সদের কাছ থেকে ৩৬ থেকে ৩৯% কমিশন নিলের ড্রাইভার্সদের সুযোগ-সুবিধার ব্যাপারে তাদের কোন নজর নেই। এসব প্রতিষ্ঠান ড্রাইভার্সদের নিজেদের পার্টনার (অংশ) মনে করছে না। আমাদের মধ্যে অনেকেই ২০ বছর ধরে ড্রাইভিং পেশায় জড়িত। আমাদের দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার আলোকেই আমরা নতুন করে ভাবতে লিখেছি, নতুন উদ্যোগ নিতে বাধ্য হয়েছি।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে উড়াল-এর উদ্যোক্তারা বলেন, আমরা পর্যায়ক্রমে ড্রাইভার্সদের ইন্স্যুরেন্স, অটো সার্ভিস, ওয়ার্কশপ সুবিধা প্রদান নহ সবল বেনিফিট দেওয়ার কথা ভাবছি এবং সবার সহযোগিতা পেলে উড়াল-কে মাল্টি সার্ভিসেস প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা সময়ের ব্যাপার মাত্র। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তারা বলেন, ভাবিষ্যতে শুধু উত্তর আমেরিকা নয় বিশ্বব্যাপী যাত্রী সেবা দেয়াই উড়াল-এর টার্গেট। সেই ক্ষেত্রে প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য ঢাকা-নিউইয়র্কে বিশেষ সার্ভিস দেয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তারা বলেন, উড়াল-এর সাথে সম্পৃক্ত ড্রাইভার্সরা মূলত: ওয়ার্কিং পার্টনার হিসেবে কাজ করবেন।
উবার-লিফট প্রভৃতি নামের প্রতিষ্ঠানগুলো যেখানে মিলিয়ন ডলারের ব্যবসা করছে সেখানে উড়াল নতুন প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেদের কেমন করে প্রতিষ্ঠিত করবে এমন- প্রশ্নের উত্তরে উড়াল’র উদ্যোক্তরা বলেন, আমাদের অভিজ্ঞতা, আমাদের অধিকার সর্বপরি আমাদের সর্বজনিন পরিকল্পনাই লক্ষ্যে পৌছাতে সাহায্য করবে। আর নতুন করে কাউকে না কাউকে তো দায়িত্ব/উদ্যোগ নিতেই হবে।

You Might Also Like