নির্বাচনী সহিংসতা: বাগমারায় গুলিবিদ্ধ আরেকজনের মৃত্যু

রাজশাহীর বাগমারায় গুলিবিদ্ধ হয়ে জাহিদুল ইসলাম বুলু নামের আরেক জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রায় ৩৬ ঘণ্টা চিকিৎসাধীন থাকার পর রোববার ভোর ৫টার দিকে রাজশাহীর মহানগর ক্লিনিকে মারা যান তিনি।

জাহিদুল ইসলাম বুলু উপজেলার কোন্দ এলাকার মুক্তিযোদ্ধা সোহরাওয়ার্দী হোসেনের ছেলে।

নিহত জাহিদুল ইসলামের চাচাতো ভাই সেলিম জানান, রোববার দুপুরে মহানগর ক্লিনিকে তার মস্তিস্কে অস্ত্রপচার হয়। চিকিৎসক লুৎফর রহমান ওই অস্ত্রপচার করেন। এরপর থেকেই তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানেই তিনি মারা যান। তাদের অভিযোগ, চিকিৎসকের অবহেলায় জাহেদুল মারা গেছেন। এ নিয়ে তারা আইনত ব্যবস্থা নেবেন বলেও জানিয়েছেন।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যা থেকে নগরীর সিডিএমএ হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন জাহিদুল। বাম কানের নিচে গুলি লেগে গুলিটি মাথা দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ায় তার অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিলো।

লাশ নিয়ে ভোরেই গ্রামের বাড়িতে পৌঁছে যান জাহিদুলের স্বজনরা। তবে ময়নাতদন্ত না হওয়ায় সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সেখান থেকে লাশ নিয়ে যায় পুলিশ।

হাটগাঙ্গোপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাসউদ আলী সরকার জানান, খবর পেয়ে তারা লাশ উদ্ধার করেন। ময়নাতদন্তের পরে তা নেয়া হয় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল মর্গে। এ বিষয়ে তারা আইনত ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

এদিকে, বাগমারার ওই সংঘর্ষের ঘটনায় এই নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাড়ালো তিনে। এর আগে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান সিদ্দিকুর রহমান। পরে পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু হয় রমজান আলী রঞ্জুর। নিহতরা সবাই স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী।

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে শনিবার বিকেলে উপজেলার হাটগাঙ্গোপাড়ায় আওয়ামী লীগের দুপক্ষের ওই সংঘর্ষ বাধে। এসময় তাদের সরাতে পুলিশ গুলি ছুঁড়লে গুলিবিদ্ধ হন অর্ধশত মানুষ। এর মধ্যে ঘটনাস্থলেই মারা যান একজন। এ ঘটনায় আহত হন সাত পুলিশ সদস্যও।

আহতদের মধ্যে ছয় পুলিশ সদস্যসহ ১৬ জনকে ভর্তি করা হয় রামেক হাসপাতালে। এ নিয়ে রোববার দুপুরে হাটগাঙ্গোপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই মাসউদ আলী সরকার বাদি হয়ে ৬০  জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১২শ’ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। সরকারি কাজে বাধা, পুলিশের ওপর হামলা ও বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা ওই মামলায় এরই মধ্যে ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে বেশিরভাগই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তারা সুস্থ হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেয়ার কথা।

চতুর্থ ধাপে গত শনিবার বাগমারার ১৬ ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিলো। কিন্তু সহিংসতার শঙ্কায় এর দুই দিন আগে বৃহস্পতিবার ভোটগ্রহণ স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। এ নিয়ে কারন দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয় স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এনামুল হককে। তফসিল ঘোষণার পর থেকেই এনামুল হকের সমর্থকদের সঙ্গে বিরোধী পক্ষের উত্তেজনা চলে আসছিলো।

You Might Also Like