নারায়ণগঞ্জ ৭ খুন : অভিযুক্ত সাবেক র‌্যাব কর্মকর্তা তারেক ও আরিফ গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জের অপহরণের পর ৭ হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সাথে অভিযুক্ত সেনাবাহিনীর বাধ্যতামূলক অবসরপ্রাপ্ত র‌্যাব-১১ এর সাবেক ২ কর্মকর্তা লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ ও মেজর আরিফ হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তবে অভিযুক্ত নৌ-বাহিনীর কর্মকর্তা ও র‌্যাবের নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এম এম রানাকে এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্র এ গ্রেফতারের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানায়, নারায়ণগঞ্জের গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম রাত ২টার দিকে ঢাকা সেনানিবাসের লগ এরিয়া থেকে মিলিটারি পুলিশের মাধ্যমে ঐ ২ অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তাকে তাদের হেফাজতে নেন। এরপরই তাদেরকে ক্যান্টনমেন্ট থানা পুলিশের মাধ্যমে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত নৌ-বাহিনীর কর্মকর্তা ও র‌্যাবের নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এম এম রানাকে পাওয়া যায়নি। র‌্যাব-১১-এর সাবেক ৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের ৭ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত বলে অভিযোগ ওঠে। অভিযোগ ওঠার পর এই ৩ কর্মকর্তাকে অবসর দেওয়া হয়। ৬ মে সেনাবাহিনীর ২ জনকে অকালীন ও নৌ-বাহিনীর একজনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়। ১১ মে এই ৩ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ঐ নির্দেশের পরপর ১২ মে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মতামত চেয়ে প্রতিরক্ষা সচিবকে চিঠি পাঠায়। ১৫ মে সেনা সদরের জিএজি বিভাগ থেকে ঐ চিঠির জবাব দেওয়া হয়। এতে বলা হয়, ‘আপনাদের সদয় অবগতির জন্য উল্লেখ করা যাচ্ছে যে হাইকোর্টের নির্দেশনার আলোকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কর্তৃক এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যদ্বয় সর্ম্পকে দেশের প্রচলিত ফৌজদারি আইন অনুযায়ী কার্যক্রম গ্রহণ করা যেতে পারে।’

উল্লেখ্য, গত ২৭ এপ্রিল দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অপহৃত হন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন। এর ৩ দিন পর ৩০ এপ্রিল ৬ জনের এবং পরদিন আরও একজনের লাশ শীতলক্ষ্যায় ভেসে ওঠে। এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করে নজরুলের পরিবার।

৪ মে নজরুলের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদ চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, ৬ কোটি টাকার বিনিময়ে র‌্যাবের ৩ কর্মকর্তা ঐ ৭ জনকে অপহরণ ও খুন করেছেন।

You Might Also Like