লেবাননে ইসরায়েলের গোয়েন্দা শকুন আটক

ইসরাইলের একটি গোয়েন্দা শকুন আটকের দাবি করেছে লেবানন।

দক্ষিণ লেবাননের অধিবাসীরা ইসরাইলের স্থান শনাক্তকরণ ট্রান্সমিটারসহ একটি শকুনকে আটক করেছে। এটি ইসরায়েলের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করছিল বলে তাদের দাবি।

ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম প্রেসটিভির অনলাইন সংস্করণে জানানো হয়, মঙ্গলবার লেবাননের সীমান্তবর্তী এলাকা পাড়ি দেয়ার সময় বিন্ট জেবিল শহরের বাসিন্দারা শকুনটিকে আটক করেন।

ছবিতে দেখা যায়, বিরাটাকার শকুনটির দুই ডানায় ইংরেজিতে পি ৯৮ লেখা স্টিকারের মতো কিছু একটা আটকে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত আগস্ট মাসে ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ শহর গাজার উপকূলের কাছে ইসরায়েলের একটি ‘গোয়েন্দা’ ডলফিন আটকের দাবি করে হামাস। আটকের আগে কয়েক দিন ধরেই ওই ডলফিনকে গাজার উপকূলে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখা গিয়েছিল।

আটকের পর হামাস বাহিনী ডলফিনটির দেহের উপরিভাগে বাঁধা ছোট ভিডিও ক্যামেরা উদ্ধার করেছে। ক্যামেরাটি দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় বলে জানিয়েছে হামাস। এছাড়া ডলফিনের গায়ে বাঁধা ছিল তীর ছোড়ার উপযোগী ক্ষুদ্র যন্ত্র।

পরীক্ষার পর জানা গেছে, ওই তীরে বিষ মাখানো ছিল, যা মানুষ মারতেও সক্ষম।

ফিলিস্তিনি সংবাদমাধ্যম আল-কুদসের খবরে আরো বলা হয়, গাজার সাগরে হামাসের নৌ প্রতিরক্ষা বাহিনী গঠনের পর ইসরায়েল ডলফিনটিকে ব্যবহার করে তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করছিল। গাজা উপত্যকায় নজরদারিই ছিল এই ডলফিনের মূল লক্ষ্য। অব্শ্য গুপ্তচরবৃত্তিতে প্রাণী ব্যবহার করা ইসরায়েলের জন্য নতুন ঘটনা নয়।

এর আগে ২০১২ সালে মিসরে দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের গুপ্তচরবৃত্তিতে ব্যবহৃত সরঞ্জামসহ একটি ঈগল পাখিকে আটক করা হয়।

You Might Also Like