আল্লাহ তা’য়ালা দুনিয়াতে যে ব্যক্তির বরকত কেড়ে নেন

ইসলামের পাঁচি স্তম্ভের মধ্যে নামাজ অন্যতম। আল্লাহ তা’য়ালা দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ফরজ করেছেন। এই নামাজকেই মুমিনের ঢাল স্বরূপ। অথচ আমরা অবলিলায় নামাজ ছেড়ে দিচ্ছি। যারা নামাজ ত্যাগ করবে, তাদের জন্য রয়েছে দুনিয়া ও আখিরাতে পদে পদে লাঞ্ছনা, অসহায়ত্ব, কষ্ট এবং কঠিন শাস্তি। যার কিছু তুলে ধরা হলো-

দুনিয়ার জীবনে:
ক. আল্লাহ তাআলা দুনিয়ার জীবনে সবকিছু থেকে বরকত কেড়ে নিবে।

খ. নামাজ ত্যাগকারীর চেহারায় কোনো নূর থাকবে না।

গ. আল্লাহর পক্ষ থেকে কোনো আমলের পুরস্কার পাবে না।

ঘ. অন্য কোনো লোক তার জন্য দোয়া করলে, সে দোয়া তার কোনো কাজে আসবে না।

ঙ. দুনিয়ার সকল সৃষ্টিজীবের নিকট সে হবে ঘৃণিত ব্যক্তি।

মৃত্যুকালীন অবস্থা:
ক. বেনামাজি অপদস্থ-লাঞ্ছিত হয়ে মৃত্যু বরণ করবে।

খ. প্রচণ্ড ক্ষুধার্ত অবস্থায় মৃত্যু বরণ করবে।

গ. এমন পিপাসিত হয়ে মৃত্যুবরণ করবে যে, দুনিয়ার সব সাগরের পানি পান করলেও তার পিপাসা মিটবে না।

কবরের অবস্থা:
ক. বেনামাজির কবরকে এমন সংকীর্ণ করা হবে যে, এক পাঁজরের হাড় অন্য পাঁজরে ঢুকে পড়বে।

খ. কবরে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হবে, যে আগুনের আঙরা বা জ্বলন্ত কয়লার ওপর রাত-দিন পলটি খেতে থাকবে।

গ. কবরে এমন এক বিষাক্ত সাপ নিযুক্ত করা হবে। এ সাপটি দৈনিক পাঁচ বার বিষাক্ত ছোবল দিবে। ফজরের নামাজ তরক করার কারণে ফজর থেকে জোহর পর্যন্ত, জোহরের নামাজ তরক করার কারণে জোহর থেকে আছর পর্যন্ত, এভাবে ইশা পর্যন্ত। এর ছোবল এতটাই বিষাক্ত হবে যে, প্রতি ছোবলে বেনামাজি ৭০ গজ মাটির নিচে চলে যাবে।

কিয়ামতের দিবসের অবস্থা:
ক. আগুনের কয়লার উপর চেহারাকে টানা-হেঁচড়া করা হবে।

খ. হিসাবের সময় আল্লাহ তাআলা গজবের দৃষ্টিতে তাকাবে যার ফলে তার চেহারার গোস্ত খসে পড়ে যাবে।

গ. হিসাব হবে কঠিন। অতপর জাহান্নামের দিকে টেনে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হবে।

পরিশেষে আল্লাহ তাআলা সমগ্র মুসলিম উম্মাহকে উপরোক্ত শাস্তি থেকে হেফাজত করুন। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

You Might Also Like