গাজীপুরে দম্পতি হত্যা: মা-ছেলের ফাঁসি, বাবা-মেয়ের যাবজ্জীবন

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় সম্মানিয়া এলাকায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে স্বামী ও স্ত্রীকে হত্যার দায়ে দুজনকে ফাঁসি ও দুজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এ কে এম এনামুল হক এ আদেশ দেন।এ রায়ে একই সঙ্গে আসামিদের ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আদালতে আসামিরা উপস্থিত ছিলেন।

ফাঁসির আদেশ পাওয়া দুজন হলেন- আনোয়ারা বেগম ও তাঁর ছেলে মোস্তফা। এ ছাড়া যাবজ্জীবন সাজা পাওয়া দুজন হলেন আনোয়ারার স্বামী রহমত আলী ও মেয়ে রহিমা বেগম।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১১ সালের ১৩ নভেম্বর দুপুর ২টায় কাপাসিয়া উপজেলার সম্মানিয়া এলাকার বাসিন্দা সুরুজ মিয়া মেহগনি বাগানে কাজ করছিলেন। এ সময় অভিযুক্ত রহমত আলী তাঁকে কাজে বাধা দেন। তাঁদের মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে রহমত আলী এবং তাঁর ছেলে মোস্তফা ধারালো দা দিয়ে সুরুজকে আঘাত করেন। এতে তিনি পড়ে গেলে রহমত আলীর স্ত্রী আনোয়ারা বেগম সাবল দিয়ে সুরুজকে ফের আঘাত করেন।এতে ঘটনাস্থলে সুরুজ মিয়া মারা যান। পরে সুরুজের স্ত্রী হনুফা স্বামীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেন। এ সময় রহিমাসহ অভিযুক্তরা হনুফাকে দা-শাবল দিয়ে আঘাত করলে তিনিও গুরুতর আহত হন। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পরের দিন হনুফাও মারা যান।

এ ঘটনায় নিহত সুরুজের ভাই মো. শাহজাহান বাদী হয়ে ওই বছরের ১৪ নভেম্বর কাপাসিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন।পুলিশ মামলাটি তদন্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আদালতে ২১ জন সাক্ষ্য দেন। আদালত বাদী ও বিবাদীপক্ষের আইনজীবীর যুক্তিতর্ক শেষে আজ এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট হারিছ উদ্দিন আহমেদ গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘আমরা এ রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করছি এবং আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি।’

মামলায় ন্যায়বিচার পাননি অভিযোগ করে উচ্চ আদালতে আপিলের ঘোষণা দেন আসামিপক্ষের আইনজীবী।

You Might Also Like