‘নয়া জিহাদি জন’কে নিয়োগ দিতে চেয়েছিল এমআই৫

উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশের নৃশংস হত্যাকাণ্ডে অংশগ্রহণকারী এক জঙ্গিকে নিয়োগ দিতে চেয়েছিল ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমআই৫। ‘নয়া জিহাদি জন’ নামে খ্যাত জঙ্গি সিদ্ধার্থ ধর ব্রিটেন থেকে সিরিয়ায় পালিয়ে যাওয়ার আগে এই কাজ করতে চেয়েছিল এমআই৫।

এ খবর দিয়েছে ব্রিটিশ পত্রিকা সানডে টাইমস। এটি জানিয়েছে, ব্রিটিশ গোয়েন্দা কর্মকর্তারা গত সেপ্টেম্বরে সিদ্ধার্থ আটক হওয়ার আগ মুহূর্তে তাকে দ্বৈত এজেন্ট হিসেবে কাজ করার প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু তা গ্রহণ না করে সে প্যারিস হয়ে মধ্যপ্রাচ্যে চলে যায়। পুলিশি হেফাজত থেকে জামিনে মুক্ত পাওয়ার পরপরই সে ব্রিটেন ত্যাগ করে।

সানডে টাইমস জানিয়েছে, এমআই৫ কর্মকর্তারা সিদ্ধার্থ ধরকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছিলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর পক্ষে কাজ না করলে তাকে কারাগারে যেতে অথবা নিহত হতে হবে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র পত্রিকাটিকে বলেছে, “ধরের ব্যাপারে এমআই৫’র কাছে অনেক তথ্য ছিল।… সে একটি শক্তিশালী হুমকি হওয়ার পরও এমআই৫’র জন্য সে ছিল গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ।”

গত সপ্তাহে দায়েশের পক্ষ থেকে প্রকাশিত একটি ভিডিও’তে ব্রিটিশ উচ্চারণে ইংরেজিতে কথা বলে মুখোশ পরিহিত এক জঙ্গি। তাকেই সিদ্ধার্থ ধর হিসেবে মনে করছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম এবং তার নাম দেয়া হয়েছে নয়া জিহাদি জন।

ওই ভিডিওতে দেখা যায় কথিত গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে সিরিয়ার পাঁচ ব্যক্তিকে মাথায় গুলি চালিয়ে হত্যা করা হচ্ছে। ওই পাশবিক হত্যাকাণ্ডের আগে মুখোশ পরিহিত নয়া জিহাদি জন জানায়, ‘এটি হচ্ছে ডেভিড ক্যামেরনের প্রতি আমাদের বার্তা।’

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন এ ভিডিও’কে দায়েশের প্রচারণার হাতিয়ার হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, জঙ্গি গোষ্ঠীটি যুদ্ধক্ষেত্রে পরাজিত হচ্ছে।

এর আগে দায়েশের পক্ষে প্রথম গলা কেটে নরহত্যার ভিডিও প্রকাশ করে কুখ্যাত হয় আরেক ব্রিটিশ নাগরিক জিহাদি জন। গত বছরের শেষদিকে সিরিয়ায় এক বিমান হামলায় সে নিহত হয় বলে ব্যাপকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

ব্রিটিশ সরকারের পরিসংখ্যান বলছে, ইরাক ও সিরিয়ায় দায়েশের পক্ষে যুদ্ধ করার জন্য প্রায় ৮০০ ব্রিটিশ নাগরিক মধ্যপ্রাচ্যে গেছে। এদের অর্ধেক এরইমধ্যে ব্রিটেনে ফিরে গেছে এবং অন্তত ৭০ জন নিহত হয়েছে।

You Might Also Like