জিয়াউর রহমানের ক্ষমতা দখল ও দল গঠন অবৈধ : শেখ হাসিনা

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিলেন। উচ্চ আদালত সেই বিষয়ে রায় দিয়েছেন। ফলে উচ্চ আদালতের রায় মানলে জিয়াউর রহমানকে এখন আর রাষ্ট্রপতি হিসেবে গণ্য করা উচিত হবে না। একইসঙ্গে জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় গিয়ে যে দল গঠন করেছেন, সেই দলকে অবৈধ বলে গণ্য করা দরকার।”

শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আজ (সোমবার) বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার দিলে পেয়ারা পাকিস্তান, তিনি পাকিস্তানকে ভুলতে পারেন না। তাই পাকিস্তানি দোসররা যে সুরে কথা বলেন, তিনিও সেই সুরে কথা বলেন।’

খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে এ দেশ স্বাধীন হয়। সেই শহীদদের সংখ্যা নিয়েও তিনি কটাক্ষ করেন।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করে সোনার বাংলা গড়াই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন। বাংলাদেশ যখন অর্থনৈতিক মুক্তির পথে এগিয়ে যাচ্ছিল, সেই সময় চরম আঘাত আনা হয়। ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়।’

১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন সময়ে ১৯টি ক্যু হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সে সময়ে প্রচুর মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তা ও সদস্যকে হত্যা করা হয়েছে। তাদের লাশ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের প্রক্রিয়া শুরু হয়।‘

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী অভিযোগ করেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তীকালে মানবতাবিরোধী অপরাধে ২২ হাজার লোককে বন্দি করা হয়। এর মধ্যে ১১ হাজারের সাজা হয়। সে সময় গোলাম আযম পাকিস্তানের পাসপোর্ট নিয়ে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যায়। সে সময় যুদ্ধাপরাধীদের ভোটের অধিকার ছিল না। সেই গোলাম আযমকে জিয়াউর রহমান দেশে ফিরিয়ে নিয়ে আসে। আর খালেদা জিয়া তার পদাঙ্ক অনুসরণ করে গোলাম আযমকে নাগরিকত্ব দেয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করে দেয়া হয়।’

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার শুরু করে। ২০০৯ সালে এসে যুদ্ধপরাধীদের বিচার শুরু করে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করার পর অনেক মহল এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে। কিন্তু কোনো মহলের ষড়যন্ত্রই সেই বিচার কাজ বন্ধ করতে পারবে না।’

‘হাসিনাকে আরও কয়েক টার্ম প্রধানমন্ত্রী হওয়া দরকার’
জনসভায় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘শেখ হাসিনাকে আরও সময় দিতে হবে। তাকে আরও এক টার্ম নয়, কয়েক টার্ম সময় দিতে হবে। আরও কয়েকটা টার্ম তার প্রধানমন্ত্রী হওয়া দরকার। এটা শেখ হাসিনার জন্য নয়, বাংলাদেশের জন্য, বাংলাদেশের মানুষের জন্য, উন্নয়নের জন্য।’

পাকিস্তানের বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমান দেশে ফেরেন। এই দিনটির স্মরণে রোববার আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। ওই দিন ইজতেমার আখেরি মোনাজাত থাকায় আজ জনসভা করছে আওয়ামী লীগ।

You Might Also Like