জয় দিয়েই বার্সা ও রিয়ালের বছর শেষ

ক্লাবের ইতিহাসে অন্যতম সেরা বছর পার করলো বার্সেলোনা। আর নিজেদের মাঠ নু ক্যাম্পে জয় দিয়েই ২০১৫ সালকে বিদায় জানালো তারা। থাকলো পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। বছরের শেষ লিগ ম্যাচে কাতালানরা ৪-০ গোলে হারিয়েছে রিয়াল বেতিসকে। ক্লাবের হয়ে নিজের ৫০০তম ম্যাচে গোল করেছেন লিওনেল মেসি। তাদের চির প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদও জয় দিয়ে বছর শেষ করেছে। নিজেদের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাবুতে রিয়াল সোসিয়েদাদকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে তারা। এই ম্যাচে পেনাল্টি মিস করলেও দুই গোল করে তা পুষিয়ে দিয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

নু ক্যাম্পে ম্যাচের আগে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা সম্প্রতি জেতা ক্লাব বিশ্বকাপের ট্রফি নিয়ে প্যারেড করলেন। এটা ২০১৫ সালে তাদের পঞ্চম শিরোপা। পাঁচ শিরোপা নিয়ে বার্সার খেলোয়াড়রা গার্ড অব অনারও পেয়েছেন মাঠে। দারুণ বছরটিতে বার্সেলোনা ১৮০ গোল করেছে। তারা ছাড়িয়ে গেছে ২০১৪ সালে রিয়াল মাদ্রিদের করা ১৭৮ গোলকে।

এমন একটি বছরেই অনেক অর্জন মেসির। ক্লাবের পক্ষে মাইলস্টোন ৫০০ ম্যাচও হয়ে গেলো। সব মিলিয়ে সন্তুষ্ট মেসি। বলেছেন, “এটা অসাধারণ বছর ছিল। এর চেয়ে ভালো করা কঠিন। কিন্তু আমরা তা করার চেষ্টা করবো।”

এই ম্যাচে প্রতিপক্ষ গোলকিপার আন্তোনিও আদানের সাথে মেসির সংঘর্ষ কাঁপিয়ে দিয়েছিল বার্সা সমর্থকদের। রেফারি পেনাল্টি দিয়েছেন। দলের চিকিৎসকরা মেসিকে পরীক্ষা করে দেখার পর আবার খেলার অনুমতি দিয়েছেন। ওই ঘটনা নিয়ে মেসি বলেছেন, “এটা অদ্ভুত এক খেলা ছিল। আমি জানি না এটা পেনাল্টি ছিল কি না। যখন ধাক্কা খেলাম তখন বুঝে উঠতে পারিনি কি হলো।”

নেইমার গিয়েছিলেন পেনাল্টি নিতে। কিন্তু ক্রস বারে মেরেছেন। ফিরে আসা বল কিভাবে যেন হেইকো ওয়েস্টারমান আত্মঘাতী গোলে রূপ দিয়ে দিলেন! এগিয়ে গেলো বার্সেলোনা। ৩৩ মিনিটে মেসি নেইমারের অ্যাসিস্টে করেছেন লা লিগায় তার ২৯২তম গোল। দুটি গোল করেছেন লুই সুয়ারেস। ৪৬ ও ৮৩ মিনিটে গোল দুটি করেন তিনি।

বছরের শেষটা রোনালদোর জন্য খুব বাজে হতে পারতো। কিন্তু তিনি ঘুরে দাঁড়াতে জানেন। রিয়াল মাদ্রিদের এই সুপারস্টার ২৪ মিনিটে পেনাল্টি থেকে নেয়া শটে বল বারের ওপর দিয়ে বাইরে পাঠিয়েছেন। এরপর অবশ্য ৪৩ ও ৬৭ মিনিটে দুই গোল করেছেন। ৮৬ মিনেট তাদের অন্য গোলটি করেছেন লুকাস ভাজকুয়েজ।

You Might Also Like