‘প্রাণঘাতী সারিন গ্যাস চুরি ও ব্যবহার করেছে দায়েশ’

তাকফিরি-ওয়াহাবি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশ (আইএসআইএল) লিবিয়ার কয়েকটি ভূগর্ভস্থ স্থাপনা থেকে রাসায়নিক অস্ত্র-সামগ্রী চুরি করতে সক্ষম হয়েছে এবং তারা এরইমধ্যে নানা রাসায়নিক গ্যাস ব্যবহারও করেছে। লিবিয়ার সাবেক স্বৈরশাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফির এক জ্ঞাতিভাই এই খবর দিয়েছেন। ওই স্থাপনাগুলোয় যথাযথ প্রহরা নেই বলেও তিনি জানিয়েছেন।

আরটি’র আরবি সংবাদ মাধ্যমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আহমেদ গাদ্দাফি আদ-দাম জানিয়েছেন, চুরি-করা রাসায়নিক গ্যাস দেশটির উত্তরাঞ্চলে পাচার ও বিক্রি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘দুই ধরনের রাসায়নিক অস্ত্র চুরি করা হচ্ছে এবং ত্রিপোলি থেকে কয়েকটি সূত্র আমাকে এ তথ্য দিয়েছে। দু’টি ঘটনার একটিতে সাত ড্রাম সারিন গ্যাস এবং দ্বিতীয় ঘটনায় এ ধরনের ৫ ড্রাম চুরি হয়েছে।’

এইসব ধ্বংসাত্মক অস্ত্র এরইমধ্যে ব্যবহার করা হয়েছে বলেও আদ-দাম জানান। এক সময় নিহত গাদ্দাফির সবচেয়ে বিশ্বস্ত নিরাপত্তা প্রধান হিসেবে বিবেচিত হতেন আদ-দাম। ত্রিপোলির আল-কুদস মসজিদের কাছে সাম্প্রতিক সংঘাতের সময় নিরাপত্তা কর্মীরা সারিন গ্যাস-ভরা একটি গাড়ি উদ্ধার করেছে বলে তিনি জানান।

আদ-দাম আরও বলেছেন, ‘যারা ওই গাড়ি চালিয়ে শহরে ঢুকেছিল তারা একটি জনবহুল এলাকায় এই নার্ভ এজেন্ট বহনের ভয়াবহ বিপদ ও ঝুঁকি সম্পর্কে কিছুই জানে না; ব্যবহারের নানা বিপদ সম্পর্কে জানা তো দূরের কথা। আমি আতঙ্ক ছড়াতে চাই না, তবে এটাই বাস্তবতা। আর বিশ্বও তা ভালভাবেই জানে।’

পশ্চিমা মদদপুষ্ট তাকফিরি ওয়াহাবি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশ ইরাক ও সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে বলে এর আগে নানা খবর প্রকাশিত হয়েছে। চলতি মাসের প্রথম দিকে তুর্কি সংসদের প্রধান বিরোধী দল সিএইচপি বা রিপাবলিকান পিপলস পার্টির সদস্য এরেন এরডেম আরটি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন সিরিয়া ও ইরাকে সক্রিয় আইএসআইএল-এর সন্ত্রাসীরা প্রাণঘাতী সারিন গ্যাস উৎপাদনের সব ধরনের সাজ-সরঞ্জাম পেয়েছে তুরস্কের মাধ্যমে।

You Might Also Like