মানবতাবিরোধী অপরাধ : জাপা নেতা রেজাউল হক গ্রেফতার

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মুক্তাগাছার চেচুয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার জাতীয় পার্টির নেতা মাওলানা এসএম রেজাউল হক (৭০) ওরফে আক্কাস মৌলভীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার দুপুরে উপজেলার চেচুয়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে মুক্তাগাছা থানা পুলিশ।

মুক্তাগাছা থানার সূত্র জানায়, আক্কাস মৌলভীর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে একাত্তরের হত্যা, অগ্নিসংযোগসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা রয়েছে। ট্রাইব্যুনালের নির্দেশে বুধবার দুপুরে পুলিশ তার গ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে মুক্তাগাছার পূর্ব চেচুয়া গ্রামের মৃত মুসলেম উদ্দিনের ছেলে রেজাউল হক ওরফে আক্কাস মৌলভী একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মাদ্রাসা ছাত্র থাকাবস্থায় আলবদর বাহিনীতে যোগ দেন। গ্রেফতারকৃত প্রভাবশালী এ আলবদর নেতার বিরুদ্ধে সুবর্ণখিলা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আহমদ আলীসহ অপর এক মুক্তিযোদ্ধা হত্যা, চেচুয়ায় হিন্দুবাড়িতে গণহত্যা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া হিন্দুদের জমি দখলেরও অভিযোগও রয়েছে। স্বাধীনতার পর তিনি আত্মগোপনে চলে যান। পরে নিজের নাম আক্কাস আলী পরিবর্তন করে এসএম রেজাউল হক লিখে পুনঃরেস্ট্রিশনের মাধ্যমে দাখিল পরীক্ষায় অংশ নেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

১৯৭৫-এর পটপরিবর্তনের পর তিনি প্রকাশ্যে আসেন। এর পর মাদ্রাসায় শিক্ষকতার পাশাপাশি সাবেক স্পিকার মরহুম শামছুল হুদা চৌধুরীর হাত ধরে প্রথমে বিএনপি ও পরে জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে সক্রিয় হন। তিনি চেচুয়া দাখিল মাদ্রাসায় সুপার ও মুক্তাগাছা উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হন। সর্বশেষ উপজেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হলে তাকে আহ্বায়কের পদ থেকে সরিয়ে সদস্য করা হয়।

তার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত টিম দীর্ঘ সময় তদন্ত শেষে অভিযোগ দায়ের করে। তার গ্রেফতারের খবরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।
মুক্তাগাছা থানার ওসি আবু মো. ফজলুল করিম তাকে গ্রেফতারের সত্যতা স্বীকার করেছেন।

You Might Also Like