রংপুরে হোশি কুনিও হত্যার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

জাপানি নাগরিক হোশি কুনিও হত্যা মামলার প্রধান আসামি জেএমবি সদস্য মাসুদ রানাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রংপুরের পীরগাছা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেন রংপুর পুলিশ রেঞ্জের ডিআইজি হুমায়ুন করিব।

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার দুপুরে মামলার তদন্ত কমিটির প্রধান ও রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি হুমায়ুন কবির সাংবাদিকদের জানান, ‘জাপানি নাগরিক হোশি কুনিও হত্যাসহ রংপুরে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া প্রত্যেকটি ঘটনার নিজের সম্পৃকতার কথা স্বীকার করেছে জেএমবি সদস্য মাসুদ রানা।’

ডিআইজি বলেন, ‘মোটরসাইকেলে ব্যবহার করে মাসুদ রানা নিজেই জাপানি নাগরিককে গুলি করেছে বলে স্বীকার করেছেন। একই সাথে সম্প্রতি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিচালকের ব্যক্তিগত সহকারি ও বাহাই কেন্দ্রর পরিচালক রুহুল আমিনকে হত্যার চেষ্টা, রংপুরের খ্রিষ্টান চার্চের যাজকদেরকে হত্যার হুমকির সাথে জড়িত রয়েছে মাসুদ।’

হোশি কুনিও হত্যার পর থেকে নিজেকে আড়াল করে অপরাধমূলক কর্মকান্ডে আরো সক্রিয় হয়ে উঠে জেএমবির এই সদস্য। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ এমন তথ্য পাওয়া গেছে দাবি করেন ডিআইজি হুমায়ুন কবির।

উল্লেখ্য, গত ৩ অক্টোবর রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার কাচু আলুটারি গ্রামে মোটরসাইকেলে চড়ে আসা মুখোশধারী দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন জাপানি নাগরিক হোশি কুনিও। ঘটনার পরপরই কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজেই বাদী হয়ে অজ্ঞাত তিনজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে।

হত্যাকাণ্ডের দিন বিকেলে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা চারজনের মধ্যে হোশি কুনিওর ব্যবসায়িক সহযোগী হুমায়ুন কবির হীরা, রংপুর মহানগর বিএনপি নেতা রাশেদুন্নবী খান বিপ্লবকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

এদিকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহেদুল ইসলাম বলেন, ‘বিপ্লব ও হীরাসহ সন্দেভাজন বেশ ক’জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। বর্তমানে সে তথ্যগুলো আমরা যাচাই বাছাই করে দেখছি।’তিনি আরো বলেন, ‘তিন মূলহোতাকে গ্রেপ্তারে পুলিশ, র‌্যাব ও গোয়েন্দা সংস্থার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এরই অংশ হিসেবে অন্যতম আসামি মাসুদ রানাকে গ্রেফ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারেও অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

You Might Also Like