বিএনপির প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত

আসন্ন পৌর নির্বাচনে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। দলের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত তিন নেতা গতকাল দিনভর সমর্থন প্রত্যাশীদের সর্বশেষ খোঁজ-খবর নিয়ে এ তালিকা চূড়ান্ত করেছেন। সেই সঙ্গে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহানকে দেয়া হয়েছে দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্তদের প্রত্যয়নের ক্ষমতা। তিনিই বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের প্রত্যয়ন করবেন নির্বাচন কমিশনে। বিএনপির তরফে একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশনে গিয়ে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কর্তৃক মোহাম্মদ শাহজাহানকে ‘প্রার্থী প্রত্যয়নের ক্ষমতা’ দেয়ার বিষয়টি অবহিত করেছে। বিএনপির সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত দুই নেতা জানান, কৌশলগত কারণে দলের তরফে চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে না। দলের সমর্থন প্রত্যাশীরা নিজেদের মতো মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবেন। দল যাকে সমর্থন দেবে তাকে চিঠি মাধ্যমে জানিয়ে দেয়ার পাশাপাশি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে অবহিত করা হবে। বিএনপি চেয়ারপারসন কার্যালয় সূত্র জানায়, প্রার্থী মনোনয়নে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সহযোগিতা করছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহান ও সহ-প্রচার সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। দলের জেলা কমিটির তরফে পাঠানো সুপারিশ ও মতামতসহ বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নাম, বিভিন্ন শুভাকাঙ্ক্ষী গ্রুপের দেয়া তথ্য এবং দলীয় জরিপের ভিত্তিতে একটি প্রাথমিক তালিকা আগেই চেয়ারপারসনের কাছে জমা দেয়া হয়। সংক্ষিপ্ত তালিকায় ওঠে আসা সমর্থন প্রত্যাশীদের ব্যাপারে কয়েকদিন ধরে নানামুখী খোঁজখবর নিয়ে একক তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে কয়েকটি জায়গায় শেষ মুহূর্তের পরিবর্তনের সুযোগও রাখা হয়েছে। সেগুলোও আগামীকাল ৩০শে নভেম্বরের মধ্যে চূড়ান্ত করা হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন নেতা জানান, প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে দেশের অনেক জেলায় নেতারা একসঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি। আবার কিছু জেলায় আগেই একক প্রার্থী সমর্থন চূড়ান্ত করেছে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। যেসব জেলা থেকে একাধিক প্রার্থীর নাম এসেছিল সেগুলোই গত দুদিন ধরে ঠিক করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ওই নেতা বলেন, প্রার্থীদের সমর্থন চূড়ান্তকরণে সমর্থন প্রত্যাশীর সামাজিক প্রভাব, দলের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা, দলের স্বার্থে ত্যাগ-তিতিক্ষা এবং দলের সাবেক পদপদবীধারীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিবেচনা করা হয়েছে। সূত্র জানায়, জোটের পক্ষ থেকে বেশকিছু পৌরসভায় নিজেদের প্রার্থী চেয়েছিল শরিক দলগুলো। শরিক দলের চাওয়া প্রার্থীদের মধ্যে ধানের শীষ প্রতীকে যাদের বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সে রকম কিছু প্রার্থীকে সমর্থন ছেড়ে দিতে পারে বিএনপি। এদিকে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহানকে দলীয় প্রার্থীদের প্রত্যয়নের ক্ষমতা দিয়ে নির্বাচন কমিশনে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া স্বাক্ষরিত একটি চিঠি দেয়া হয়েছে। গতকাল দলের সহ-প্রচার সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল গতকাল সকালে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে গিয়ে ওই চিঠি হস্তান্তর করেন। নির্বাচন কমিশনের উপ-সচিব শামসুল আলম বিএনপির চিঠি গ্রহণ করেন। নমুনাপত্র জমা দেয়ার পর এমরান সালেহ প্রিন্স সাংবাদিকদের বলেন, বিধিমালা অনুসারে বিএনপির পক্ষ  থেকে পৌরসভায় মেয়র পদে প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যয়নের জন্য দলের যুগ্ম মহাসচিব মো. শাহজাহানকে চেয়ারপারসন ক্ষমতা দিয়েছেন। তারই একটি নমুনা স্বাক্ষর সংবলিত সত্যায়িতপত্র নির্বাচন কমিশনে জমা দিয়েছি। কমিশন প্রতিটি পৌরসভার রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে এ নমুনাপত্র পাঠাবেন। শনিবার বন্ধের দিনে কমিশনে যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকে ২৪ ঘণ্টাই নির্বাচন কমিশন খোলা থাকে। বিষয়টি জেনে এবং কমিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেই আমার এসেছি। কিন্তু এসে সিইসিকে না পেয়ে নির্বাচন কমিশনের উপ-সচিবের হাতে আমাদের চিঠিটি দিয়েছি। ১৫ দিন নির্বাচন পেছাতে বিএনপির শর্তের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নতুন করে ৫০ লাখ ভোটার হয়েছে। এ নির্বাচনে তাদের সম্পৃক্ত করতেই বিএনপি এ দাবি জানিয়েছে। নতুন ওই  ভোটার চূড়ান্ত হবে জানুয়ারি অথবা ফেব্রুয়ারি মাসে। কিন্তু আপনার সময় চেয়েছেন ১৫ দিন? এর জবাবে ইমরান সালেহ বলেন, ইসি এবং সরকার ইচ্ছে করলে সব সম্ভব। তারপরও আমাদের মুখপাত্র এ ব্যাপারে পরবর্তীতে বিস্তারিত জানাবেন। তিনি বলেন, সরকার আমাদের বক্তব্য আমলে নিচ্ছে না। আমরা আশা করি, নির্বাচন কমিশন ১৫ দিন নির্বাচন পিছিয়ে দিয়ে সব রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেবে। তিনি আরও বলেন, সারা দেশে আমাদের মেয়র প্রার্থীরা কমিশনের অফিসে গিয়ে বিভিন্ন হয়রানির শিকার হচ্ছেন। কারণ তারা গিয়ে কোন রিটার্নিং অফিসার বা কোন কর্মকর্তাকে অফিসে পাচ্ছেন না। এর ফলে তাদের মনোনয়ন দাখিল করতে পারছেন না।

You Might Also Like