শীতলক্ষ্যা নদী থেকে অপহৃত ৭ ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলার মদনগঞ্জের শান্তিনগর ও চর ধলেশ্বরী এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে অপহৃত ৭ ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার থেকে আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এই লাশগুলো উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নারায়ণগঞ্জে ৮ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করা হয়েছে।

বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকতার মোর্শেদ জানান, বুধবার রাতভর অভিযান চালিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে আরেকটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এটি নজরুলের গাড়ির ড্রাইভার জাহাঙ্গীরের লাশ বলে শনাক্ত করেছে স্থানীয়রা। উদ্ধারকৃত অর্ধগলিত লাশটির হাত-পা বাঁধা ছিল। সারা শরীর কোপানো ছিল। লাশটি ইটভর্তি বস্তা দিয়ে ডোবানো ছিল। এ নিয়ে দুই দিনে শীতলক্ষ্যা থেকে অপহৃত সাতটি লাশই উদ্ধার করা হলো।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করর্পোরেশনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ নজরুল ইসলামের সমর্থকেরা সকাল থেকে খুনিদের বিচার দাবিতে আবারো ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে। এতে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এছাড়া পরিবহন ভাঙচুর ও পেট্রলপাম্পে আগুন দেয় তারা।

নারায়ণগঞ্জের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুই দফা জানাজা শেষে বেলা পৌনে ১২টার দিকে স্থানীয় পশ্চিমপাড়া কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এর আগে বেলা পৌনে ১১টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাক এলাকায় মহাসড়কে মরহুমের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে আগামী রোববার নারায়ণগঞ্জে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে জেলা আইনজীবী সমিতি। সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম এবং আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজনকে অপহরণ ও হত্যার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে এ হরতালের ঘোষণা দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ থেকে গত রোববার একসঙ্গে সাত ব্যক্তি অপহৃত হন। তাঁরা হলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করর্পোরেশনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন, নজরুলের গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও তার ব্যক্তিগত গাড়ির চালক ইব্রাহিম।

 

You Might Also Like