বৃষ্টিদুর্যোগে বিপর্যস্ত তামিলনাড়ু, মৃত ৭১

একটানা ভারী বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত তামিলনাড়ু। এতে এ পর্যন্ত ৭১ জন মারা যাওয়ার খবর দিয়েছে ভারতীয় মিডিয়া। এরপরও সেখানকার আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, আগামী তিন দিন ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে তামিলনাড়ু, পুদুচেরি এবং সমুদ্র সংলগ্ন অন্ধ্রপ্রদেশের কয়েকটি এলাকায়।

 

তামিলনাড়ুর দক্ষিণ চেন্নাইয়ের মাইলাপোর এবং উত্তর চেন্নাইয়ের পেরামবুর ডুবে আছে পানিতে। কোমর সমান পানি ডিঙিয়ে অফিস যেতে সমস্যা হচ্ছে অফিসযাত্রীদের। প্রচুর ধানের জমি পুরোপুরি পানির তলায় চলে গিয়েছে নাগাপাত্তিনাম জেলায়।

 

আনন্দবাজার পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে বলা হয়, রাজ্যের অন্য অংশের মতো লাগাতার বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত রাজধানী চেন্নাইও। চেন্নাইয়ের জলমগ্ন এলাকাগুলি থেকে সোমবার ২২ জনকে বিমানে করে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন ছ’জন মহিলা এবং ১২টি শিশুও।
অবিরাম বর্ষণের কারণে তামিলনাড়ুর পনেরোটি জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করেছেন কর্তৃপক্ষ। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে বারণ করে দেওয়া হয়েছে। রেললাইন পানিতে ডুবে থাকায় দেরিতে চলছে প্রচুর ট্রেন। বাতিলও করে দেওয়া হয়েছে বহু ট্রেন। জলমগ্ন শহরের মারিনা সৈকতও। প্রশাসন সূত্রের খবর, নিচু এলাকা থেকে নিরাপদে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বহু মানুষকে। বৃষ্টিতে সব চেয়ে খারাপ অবস্থা শহরের ভেলাচেরি, তাম্বরম, ওল্ড মহাবলীপুরম রোড, আন্না নগরের।

 

মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা মৃত ব্যক্তিদের পরিবার প্রতি আড়াই লক্ষ থেকে চার লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। আর সোমবার তিনি ৫০০ কোটি টাকার ত্রাণ প্যাকেজের কথা ঘোষণা করেন। গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে বিদ্যুৎ পরিষেবাও অচল হয়ে পড়ে।

 

চেন্নাইয়ের ৫৮৭টি জলমগ্ন এলাকার মধ্যে ২০৭টি এলাকা থেকেই পানি বের করে দিতে পেরেছেন পুরসভার কর্মীরা। ঝড়-বৃষ্টিতে ভেঙে পড়া গাছ সরিয়ে দেওয়ার ফলে এখন অনেকটাই স্বাভাবিক হয়েছে শহরের যান চলাচল।

 

বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করার জন্য গতকালই তামিলনাড়ুতে পৌঁছেছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর এগারোটি দল। ত্রাণের জন্য ৩৮টি রবারের নৌকো সঙ্গে নিয়েছেন তারা। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, উদ্ধারকাজ চালানো ছাড়াও, সবাই যাতে দ্রুত ত্রাণসামগ্রী, খাবার ও ওষুধ পান, তা দেখার ভার দেওয়া হয়েছে বাহিনীর সদস্যদের।
অন্য দিকে দক্ষিণ ভারতে নিম্নচাপে ব্যাপক ঝড় বৃষ্টির কারণে আজকের হাওড়া, শালিমার ও সাঁতরাগাছি থেকে চেন্নাইমুখী পাঁচটি মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেন বাতিল করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। আরও ট্রেন বাতিল হতে পারে বলে জানিয়েছেন রেল কর্তারা।

 

নিম্নচাপের কারণে তামিলনাড়ু উপকূল লাগোয়া বিরাট এলাকা জুড়ে গত তিন দিন ধরে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে ভারি বৃষ্টি চলছে। কয়েক জায়গায় রেল লাইনের ওপর দিয়ে পানি গড়াচ্ছে।

You Might Also Like