‘হামলার পরিকল্পনা করছে আইএসআইএল , জানতো সিআইএ’

মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র পরিচালক জন ও ব্রিনন্যান স্বীকার করেছেন, তাকফিরি গোষ্ঠী আইএসআইএল সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা সম্পর্কে সিআইএ আগে থেকেই জানতো। বিশেষ করে ইউরোপ এ হামলা চালানো হবে সে তথ্যও সিআইএ’র কাছে ছিল বলে একই সঙ্গে স্বীকার করেন তিনি।

 

ব্রিনন্যান সাধারণ ভাবে জনসম্মুখে আসেন না। কিন্তু ওয়াশিংটন ডিসি’তে গ্লোবাল সিক্যুউরিটি ফোরাম ২০১৫’এর উদ্বোধনী অধিবেশনে এ মন্তব্য করেন তিনি। ওয়াশিংটন ভিত্তিক মার্কিন থিং ট্যাংক সেন্টার ফর স্ট্রাটেজিক অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিস বা সিএসআইএস এর আয়োজন করেছে। অবশ্য প্যারিসে দায়েশের সন্ত্রাসী হামলায় ১৩০ জনের বেশি নিহত এবং সাড়ে তিনশ’র  আহত হওয়ার পর এ কথা স্বীকার করলেন তিনি।

 

তিনি বলেন, গত শুক্রবারের শেষ বেলায় প্যারিসে গুলি এবং বোমা হামলায় সিআইএ বিস্মিত হয় নি। তিনি বলেন, সিআইএ’এর জানা ছিল, হামলার পরিকল্পনা বা ষড়যন্ত্র করছে দায়েশ। বিশেষ  করে ইউরোপে এ হামলার পরিকল্পনা করা হচ্ছে  সে ব্যাপারেও সিআইএ অবহিত ছিল বলে জানান তিনি।

 

এ সময়ে প্যারিসে হামলার পরিকল্পনা প্রণয়নে ধরণ নিয়ে কথা বলেন  সিআইএ পরিচালক। তিনি বলেন, কয়েক দিনের মধ্যে এ পরিকল্পনা করা হয় নি। বরং মাসের পর মাস ধরে ভেবে চিন্তে এ পরিকল্পনা করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, হামলায় কারা জড়িত থাকবে, কি ধরণের অস্ত্র, বিস্ফোরক, এবং আত্মঘাতী হামলার বেল্ট ব্যবহার করা হবে সে বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে ভাবনা-চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

 

প্যারিসের ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলাই শেষ নয় বরং দায়েশের আরো সন্ত্রাসী হামলা হবে বলে ধারণা ব্যক্ত করেন তিনি।  এ সময়ে প্যারিস হামলার ঘটনার পরবর্তী পরিস্থিতিতে পশ্চিমা নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর তৎপরতার কথাও তুলে ধরেন তিনি। তিনি বলেন, দায়েশের সঙ্গে জড়িতদের ধরার জন্য এখন নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো প্রচণ্ড ভাবে তৎপর রয়েছে।

 

প্যারিস হামলার পর  পশ্চিমা নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর তৎপরতার বিষয়ে আলোকপাত করলেও এ হামলার আগে তাদের ভূমিকা সম্পর্কে কিছু বলেন নি মার্কিন এ গোয়েন্দা প্রধান।

 

প্যারিস হামলার পরিকল্পনা প্রণয়নে দায়েশের মাসের পর মাস লেগেছে এবং এ বিষয়ে সিআইএ অবহিত ছিল বলে অপকটে প্রকাশ্য স্বীকার করেন  ব্রিনন্যান। প্যারিস হামলা ঠেকানোর এবং নিরীহ মানুষকে বাঁচানোর জন্য কেন আগাম সতর্কতা জারি করা হয় নি। এ জাতীয়  হামলার আগাম হুশিয়ারি দিয়ে নিরীহ মানুষকে কেন সতর্ক করা হয় নি সে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে মুখ খুলেন নি ব্রিনন্যান।

 

এ দিকে, এ ভয়াবহ হামলার আগে ২৯ অক্টোবর ফরাসি গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান বা ডিজিএসই বার্নাড বাজোলেতের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ব্রিনন্যান। মার্কিন হোমল্যান্ড সিক্যুউরিটি এবং সেন্টার ফর সাইবার প্যানেলের এ বৈঠকে ব্রিনন্যান, বাজোলেত, ব্রিটেনের গোয়েন্দা সংস্থা এম১৬’র সাবেক প্রধান জন সওর্য়াস এবং ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাবেক নিরাপত্তা উপদেষ্টা ইয়াকোভ আমিডোর অংশ নিয়েছেন।

 

ফরাসি টেলিভিশন চ্যানেল  ক্যানাল প্লাস’এর হোয়াইট হাউজ  সংবাদদাতা লরা হেইম এ কথা জানিয়েছেন। তিনি মার্কিন চ্যানেল এমএসএনবিসি’র দেয়া সরাসরি সাক্ষাৎকারে এ কথা জানান।

 

প্যারিস হামলার আগে পশ্চিমা এবং ইহুদিবাদী ইসরাইলি সাবেক এবং বর্তমান শীর্ষস্থানীয় গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বৈঠকে কি আলোচনা হয়েছিল তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

You Might Also Like