গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

দুর্নীতির মাধ্যমে কর্মচারীদের প্রায় ৭০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে আদালতে নালিশি মামলার আবেদন করা হয়েছে।

রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম ইউসুফ হোসেনের আদালতে গ্রামীণফোনের শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন বাংলাদেশের পাঁচ কর্মচারী এ আবেদনটি করেন।

পাঁচ বাদীর পক্ষে গ্রামীণফোন লি. এর পরিবহণ শ্রমিক মেহেদী হাসান আদালতে জবানবন্দী দেন। আদালত জবানবন্দী গ্রহণ করে বিকেল ৩টায় আদেশ দেবেন বলে জানান।

মামলার পাঁচ বাদী গ্রামীণফোন লি. শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সদস্য। তারা হলেন, গ্রামীণফোন লি. এর পরিবহণ শ্রমিক মেহেদী হাসান, মাসদি হাসান, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর মো. সোহাগ, অফিস সহকারী আফজাল সোসেন ও অপটিক্যাল ফাইভার অপারেটর নিজাম উদ্দিন।

অভিযোগপত্রে বিবাদী করা হয়েছে, গ্রামীণফোন লি., গ্রামীণফোন লি. এর সিইও, গ্রামীণফোন ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান, ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য কাজী শাহেদ আহম্মেদ, মাইনুল রহমান ভুইয়া, মাইনুল কাদের ও আহম্মেদ মনজুর দোলা।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, মামলার বিবাদীরা গ্রামীণফোন ওয়ার্কার্স প্রফিট ফান্ড এ্যান্ড ওয়েলফেয়ার ফান্ডের ১৩শ’ কর্মচারীর প্রায় সাত শত কোটি টাকা দুর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাৎ করেন। পাওনা টাকার জন্য আবেদন করলে তাদের বিভিন্নভাবে অপমান ও অপদস্ত করতেন। তাই তারা আদালতের কাছে ন্যায়বিচার পাওয়ার জন্য উপস্থিত হন।

মামলার অভিযোগ থেকে আরও জানা যায়, ২০১০ সালে সরকার কোম্পানির লাভের ৫ শতাংশ শ্রমিক কর্মচারী মধ্যে বণ্টন করার জন্য ঘোষণা দেয়। ২০১৩ সালের ২৪ অক্টোবর গ্রামীণফোনের লি. পরিচালক সভায় তা পাস করা হয়।

২০১৫ সালের মার্চ মাসে বিবাদীরা শ্রমিকদের বঞ্চিত করে লভ্যাংশের ৬ শত ৯১ কোটি ৩৮ লাখ ৬৬ হাজার ১৮৩ টাকা না দিয়ে ভাগ বাটোয়ারা করে দুর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাৎ করেন।

You Might Also Like