করাচির আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির সঙ্গে ‘র’ জড়িত: পুলিশ

পাকিস্তানের বন্দর নগরী করাচিতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির সঙ্গে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা রিচার্স অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইং বা ‘র’ এর সংশিল্লষ্টা রয়েছে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এ কথা মনে করছে নগরীর পুলিশ। পাকিস্তানে ইংরেজি দৈনিক ডন আজ(সোমবার) এ খবর দিয়েছে।

এ ছাড়া, নগরীর সন্ত্রাসী বিরোধী বিভাগ বা সিটিডি’তে ‘র’-বিরোধী’ সেলও খোলা হয়েছে। সম্প্রতি করাচিতে সুনির্দিষ্ট অভিযান চালিয়ে ‘র’এর সন্দেহভাজন এজেন্টদের গ্রেফতারের পরিপ্রেক্ষিতে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়। পুলিশ মনে করছে, করাচির আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির সঙ্গে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাটির ক্রমবর্ধমান প্রভাব বাড়ার সম্পর্ক রয়েছে।

এদিকে, করাচির স্থানীয় সরকারের আওতাধীন সংস্থাগুলোতে তিনশ’র বেশি ‘ভুয়া’ কর্মী সংক্রান্ত তথ্য পুলিশের হাতে এসেছে। এ ঘটনার সঙ্গে ‘র’এর যোগাসাজশের বিষয়টিও উড়িয়ে দেয় নি পুলিশ। বর্তমানে এ নিয়ে তদন্ত চলছে। পৌর সভার আওতাধীন নানা সংস্থায় ‘র’এর দুই শতাধিক সুপ্ত সেলের তৎপরতার বিষয়টি পুলিশের কাছে ধরা পড়েছে। এর সঙ্গে ‘ভুয়া’ কর্মীদের যোগসাজশ আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এ কাজে করাচির পুলিশকে সহায়তা করছে । কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সঙ্গে সমন্বয়ের ভিত্তিতে এ তদন্ত চলছে বলে করাচি পুলিশের শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তা জানান।

নাভিদ খাজা নামের এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান, এ পর্যন্তা তারা আটজন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে আটক করেছে। এ সব ব্যক্তির সঙ্গে ‘র’এর যোগসাজশের প্রমাণ পাওয়া গেছে উল্লেখ করে তিনি জানান, এরা সবাই বিশেষ একটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পর্কিত।

গত আগস্টে সরকারি কর্মকর্তাসহ চার সন্দেহভাজনকে আটক করেছিল করাচির পুলিশ। পুলিশ দাবি করেছিল, ‘র’এর প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত এ সব ব্যক্তিকে দিয়ে চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডরে গোলযোগ সৃষ্টি করতে চাওয়া হয়েছিল। বিশেষ একটি রাজনৈতিক দলের সদস্য হিসেব এ সব ব্যক্তিকে চিহ্নিত করেছে পুলিশ।

এ ছাড়া, তারা পবিত্র মহররম মাসে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করেছিল। পাশাপাশি তারা করাচির আইন প্রণেতাদের গুপ্তহত্যা করতে চেয়েছিল বলেও জানান হয়েছে।

You Might Also Like