‘বিদেশি-পুলিশ হত্যা ও বোমা হামলা একই সূত্রে গাঁথা’

দুই বিদেশি ও পুলিশ হত্যা এবং তাজিয়া সমাবেশে বোমা হামলা একই সূত্রে গাঁথা বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘যারা স্বাধীনতা চায়নি, তারাই দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য এ ঘটনা ঘটিয়েছে।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পুরান ঢাকার হোসেনী দালানে শিয়া মতালম্বীদের তাজিয়া সমাবেশে বোমা হামলায় আহতদের দেখতে গিয়ে আজ রোববার দুপুরে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশের জনগণ ধর্মপ্রিয়। তারা উগ্র ধর্মান্ধ নন। হাজার বছরের ইতিহাসে এটা একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা। যেখানে অন্যান্য ধর্মে এ ধরনের ঘটনা ঘটলে সাধারণ মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে তা প্রতিহত করেছেন এবং একটি সত্য প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা সকল সময় জনগণের পক্ষ থেকেই হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা অসাম্প্রদায়িকতায় বিশ্বাস করি। এই তাজিয়া মিছিলে শুধু শিয়া মতালম্বীর মানুষই অংশগ্রহণ করেন না, এখানে অন্যান্য মতালম্বীরাও অংশগ্রহণ করেন। তাই আমি মনে করি, আশুরার দিনটি যথাযথ মর্যাদায়েই পালন করতে হবে।’

মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, ‘বোমা হামলার এ ঘটনা ধর্মের বিরুদ্ধে নয়। আমার মনে হয়, এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে জনগণের মনে ভীতি সঞ্চয় করার জন্য।’

তিনি বলেন, ‘এই কর্মকা- যারা ঘটিয়েছে তারা সন্ত্রাসী এবং নৈরাজ্যবাদী। যে কোনো সন্ত্রাসী এবং নৈরাজবাদী একক কোনো রাষ্ট্রের নয়, তারা সমগ্র রাষ্ট্র এবং মানবতার শত্রু। এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের মানুষ এর আগেও প্রত্যাখ্যান করেছে, এবারো করবে।’

আশুরায় পাকিস্তান এবং বালংলাদেশে শিয়া মতালম্বীদের বেশ কয়েকজন হতাহতের ঘটনা প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশে তাজিয়ায় বোমা হামলার বিষয়ে আন্তর্জাতিক কোনো যোগসূত্র খোঁজার দরকার নেই। যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে।’

You Might Also Like