বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির নির্বাচনে ফিরোজ-দুলাল প্যানেল বিজয়ী

বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতি ইউএসএ ইনক’র নির্বাচনে ফিরোজ-দুলাল প্যানেল জয়লাভ করেছে। নির্বাচনে সমিতির ২৪টি পদের মধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ২৩টি পদে ফিরোজ-দুলাল প্যানেলের প্রার্থীরা জয়ী হন। অপরদিকে  তাদের একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বি বাকের-কালাম প্যানেল পেয়েছে ১টি পদ (সহ-সাধারণ সম্পাদক)। গত ২৭ এপ্রিল রোববার এই নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ভোট গ্রহণ চলে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত। ভোট গ্রহণ শেষে টান টান উত্তেজনায় রাত সাড়ে ১০টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার জহিরুল ইসলাম মোল্লা উভয় প্যানেলের প্রার্থী ও সমর্থকদের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে  ফলাফল ঘোষণা করেন। সভাপতি পদে ফিরোজুল আলম ৭৪ এবং সাধারণ সম্পাদক পদে মিয়া মোঃ দুলাল ১৪৩ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন।

ফিরোজ-দুলাল প্যানেলের নব নির্বাচিতরা হলেন: সভাপতি- আলহাজ্ব ফিরোজুল ইসলাম, সিনিয়র সহ সভাপতি- হাজী খবির উদ্দিন, সহ সভাপতি- ফজলুল করিম ইয়ার ও মোহাম্মদ আলী, সাধারণ সম্পাদক- মিয়া মোঃ দুলাল, কোষাধ্যক্ষ- জাহাঙ্গীর এ সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক- আমানত হোসেন আমান, প্রচার সম্পাদক- জাকির হোসেন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক- ইকবাল খান, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- আবুল খায়ের আকন্দ এবং কার্যকরী সদস্য- কাজী তোফায়েল ইসলাম, হাজী পেয়ার আহমেদ, ইসমাঈল মিয়া, ইউনুস সরকার, হাতেম আল মারোয়ান, নুরুল ইসলাম, জুনায়েদ আহমেদ, মোঃ এ জামান (মাসুম), বদিউল এ ভূইয়া, মোঃ এস রহমান বকুল, আবদুস সালাম, নাজমুল মামুন।

সমিতির নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন জহিরুল ইসলাম মোল্লাা। এছাড়া কমিশনের সদস্য ছিলেন মোঃ নজরুল হক ও সৈয়দ এমকে জামান। রোববার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে টানা ভোট গ্রহন চলে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত। নির্বাচনে ২হাজার ৯৯৪ জন ভোটারের মধ্যে ১হাজার ৬৯৬ জন তাদের ভোট প্রদান করেন। সমিতির কার্যকরী পরিষদের ২৫টি পদের বিপরীতে ২৪টি পদে সরাসরি ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বাকের-কালাম পরিষদের মহিলা সম্পাদিকা পদে শিরিন আক্তার বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হন।

রোববার সকাল থেকেই উৎসবমুখর পরিবেশে প্রবাসী কুমিল্ল¬াবাসী নারী-পুরুষ দল বেঁধে ম্যাকডোনাল্ডের পিএস ২৩০ কেন্দ্রে ভোট দিতে ছুটে আসে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচনী কেন্দ্র  প্রবাসী  কুমিল্লাবাসীদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। দুই প্যানেলের প্রার্থী ও সমর্থকেরা নিউইয়র্কের বিভিন্ন এলাকা থেকে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে আসতে সহযোগিতা করেন।

ফলাফল ঘোষণার পর বিজয়ী ও পরাজিতরা শান্তিপূর্নভাবে ভোট কেন্দ্র ত্যাগ করেন।

You Might Also Like