মেসির গোলে বার্সার জয়

সদ্যই দ্বিতীয় সন্তানের আগমন ঘটেছে লিওনেল মেসির ঘরে। আতলেতিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে লা লিগার গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে অনুশীলনও করতে পারেননি এ সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার। ভিসেন্তে কালদেরনে ছিলেন না বার্সার প্রথম একাদশেও। তার পরও দলের জয়ের প্রধান ভূমিকা মেসিরই। জয়সূচক গোলটি করে দ্বিতীয়বার বাবা হওয়ার উদযাপনটাও দারুণভাবে করেছেন আর্জেন্টাইন তারকা। বার্সেলোনা পেয়েছে ২-১ গোলের জয়। দখল করেছে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থান।
ইনজুরি সমস্যা আর জেরার্ড পিকের নিষেধাজ্ঞা কিছুটা চাপের মধ্যেই রেখেছিল বার্সেলোনাকে। তার ওপর শুরু থেকে মাঠে নামতে পারেননি দলের প্রধান তারকা মেসি। ২২ মিনিটের মাথায় ইনজুরির কবলে পড়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে গত ম্যাচে জয়সূচক গোল করা থমাস ভারমেলেনকে। সব মিলিয়ে কিছুটা অস্বস্তিতেই পড়েছিল কাতালানরা। প্রথমার্ধও ছিল গোলশূন্য।
দ্বিতীয়ার্ধেও শুরুতে পিছিয়ে পড়েছিল গতবারের শিরোপাজয়ীরা। ৫১ মিনিটে বার্সেলোনার জালে বল জড়িয়ে দিয়েছিলেন আতলেতিকোর স্প্যানিশ স্ট্রাইকার ফার্নান্দো তোরেস। খেলায় সমতা ফেরাতে অবশ্য খুব বেশি সময় নেয়নি বার্সেলোনা। ৫৫ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে দারুণ এক গোল করে খেলায় সমতা ফেরান ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমার। কিন্তু জয়সূচক গোলটির জন্য দলের সেরা খেলোয়াড় মেসির জন্যই অপেক্ষা করতে হয়েছে বার্সাকে। ৬০ মিনিটের মাথায় ইভান রাকিতিচের বদলি হিসেবে মাঠে নামেন মেসি। তাঁর উপস্থিতি যেন আরো চাঙ্গা করে তোলে বার্সার খেলোয়াড়দের। ৭৭ মিনিটে লুইস সুয়ারেজের পাস থেকে বল পেয়ে সেটা জালে জড়াতে কোনো ভুল হয়নি মেসির।
তাঁর মাঠে নামাটাই যে খেলার দৃশ্যপট অনেকটা বদলে দিয়েছে, সেটা স্পষ্টই বোঝা গেছে নেইমারের কথায়। ম্যাচ শেষে ব্রাজিলিয়ান এই তারকা বলেছেন, ‘যখন সেরা খেলোয়াড়টা মাঠে থাকে, তখন আমরা সবাই ভালো খেলি।’ মেসিই যে বদলটা ঘটিয়েছেন, তা ম্যাচ শেষে স্বীকার করে নিয়েছেন প্রতিপক্ষ আতলেতিকো মাদ্রিদের কোচ ডিয়েগো সিমিওনেও। তিনি বলেছেন, ‘মাঠে নেমে মেসিই পরিবর্তনটা ঘটিয়েছে। সে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে। আর আজ সে সেটা আরো একবার দেখিয়ে দিয়েছে।’
লা লিগার অপর ম্যাচে পর্তুগিজ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর দুর্দান্ত নৈপুণ্যের সুবাদে এসপানিওলের বিপক্ষে ৬-০ গোলের বড় ব্যবধানের জয় পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। পাঁচ গোল করে নিজেকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন রোনালদো। রাউলকে পেছনে ফেলে তিনিই এখন হয়ে গেছেন লা লিগায় রিয়ালের পক্ষে সর্বোচ্চ গোলদাতা। স্প্যানিশ লিগে রোনালদোর গোলসংখ্যা ২৩০। রাউলের ছিল ২২৮।

You Might Also Like