ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাইলেন হিলারি

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহার ভুল ছিল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। মঙ্গলবার এবিসি নিউজে এক সাক্ষাৎকারে ওই ভুলের জন্য প্রথমবারের মতো ক্ষমা চান তিনি। বিবিসি।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে নিজের নিউইয়র্কের বাসা থেকে রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যক্তিগত ইমেল সার্ভারটি ব্যবহার করেন হিলারি। তবে ভুল হিসেবে স্বীকার করলেও এতে আইনের লঙ্ঘন হয়নি বলে দাবি করেছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে এই মুহূর্তে হিলারিই এগিয়ে আছেন। সাক্ষাৎকারে হিলারি বলেন, ‘এটি ভুল ছিল। সেজন্য আমি দুঃখিত। আমি এর দায়িত্ব নিচ্ছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি যা করেছি তার অনুমোদন ছিল; কিন্তু এখন পেছন ফিরে দেখে অনুমোদন থাকা সত্ত্বেও মনে হয়, আমার দুটি অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করা উচিত ছিল। একটি ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য, অন্যটি দায়িত্ব-সংক্রান্ত কাজের জন্য।’

আগে দেওয়া দুটি সাক্ষাৎকারে দেশের শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক হিসেবে ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহারের ঘটনার জন্য ক্ষমা চাইতে রাজি হননি হিলারি। এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ছিল বলে দাবি করেছিলেন তিনি। রাষ্ট্রীয় কাজে হিলারির ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহারের বিষয়টি মার্চে জনসম্মুখে প্রকাশ পায়। তারপর থেকে সরকারি স্পর্শকাতর তথ্য তিনি কীভাবে সামলেছেন তা নিয়ে শুরু হওয়া প্রকাশ্য পর্যালোচনা বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে নিজের কাজের ব্যাখ্যা দিতে ও আত্মপক্ষ সমর্থন করতে বাধ্য হন তিনি।

You Might Also Like