নেইমারের জোড়া গোলে ব্রাজিলের বড় জয়

কোপা আমেরিকা থেকে ছিটকে যাওয়ার পর কোস্টারিকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে মাঠে নামে ব্রাজিল। হাল্কের একমাত্র গোলে সেদিন জিতেছিল কার্লোস দুঙ্গার শিষ্যরা। কোস্টারিকার মতো দলের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয় পাওয়ায় বেশ খানিকটা সমালোচনার শিকার হতে হয় ব্রাজিলকে। অনেকে শঙ্কা করছিল ঘরের মাঠে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ব্রাজিলের হারের। কিন্তু তেমন কিছু হয়নি।

মঙ্গলবার স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে জিলেট স্টেডিয়ামে রীতিমতো গোল উৎসব করেছে সেলেকাওরা। নেইমারের জোড়া গোলে কার্লোস দুঙ্গার শিষ্যরা জয় পেয়েছে ৪-১ গোলে। অপর দুটি গোল করেন হাল্ক ও রাফিনহা। ম্যাচের ইনজুরি টাইমে একটি গোল শোধ দেন যুক্তরাষ্ট্রের দানিয়েল উইলিয়ামস।

আগের ম্যাচে কাকাকে মাঠে নামোনো হয়েছিল। আজকের ম্যাচে তাকে আর সুযোগ দেননি। ম্যাচের শুরু থেকে সুযোগ দেওয়া হয়নি অধিনায়ক নেইমারকেও। কোস্টারিকার বিপক্ষে বার্সেলোনা তারকাকে ম্যাচের শেষ দিকে নামালেও যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ৪৫ মিনিটেই মাঠে নামান। মাঠে নেমেই গোলের দেখা পান নেইমার। ম্যাচের ৪৯ মিনিটে পেনাল্টি বক্সের মধ্যে নেইমারকে ফাউল করা হয়। পেনাল্টির বাঁশি বাজাতে ভুল করেননি রেফারি। পেনাল্টি থেকে গোল আদায় করে ব্রাজিলকে ২-০ গোলে এগিয়ে নেন নেইমার। তার আগে ব্রাজিলের গোল উৎসবের সূচনাটা করেন আগের ম্যাচের নায়ক হাল্ক। ৯ মিনিটে পাল্টা আক্রমণে বল পেয়ে যান উইলিয়ান। বল নিয়ে ডি বক্সের মধ্যে ঢুকে পরেন। শট নেন গোলে। কিন্তু বল বারে লেগে ফিরে আসে। বল চলে যায় হাল্কের কাছে। হাল্ক দেখেশুনে বল জালে জড়িয়ে দেন।

৬৪ মিনিটে লুকাস মোরার বাড়িয়ে দেওয়া বল ডি বক্সের মধ্যে পেয়ে যান রাফিনহা। সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের গোলরক্ষক ও একজন ডিফেন্ডার ছাড়া কেউ ছিল না। গোলরক্ষক বল ধরতে এগিয়ে আসেন। তাকে বোকা বানিয়ে ডান পায়ের আলতো শটে বল জালে জড়ান রাফিনহা। তার গোলে ভর করে সেলেকাওরা এগিয়ে যায় ৩-০ গোলে। ৬৭ মিনিটে লুবাস মোরার বাড়িয়ে দেওয়া বল ডি বক্সের মধ্যে পেয়ে যান নেইমার। যুক্তরাষ্ট্রের চারজন রক্ষণভাগের খেলোয়াড় ও গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে নিশানা ভেদ করেন সেলেকাও অধিনায়ক। তার জোড়া গোলে ব্রাজিল এগিয়ে যায় ৪-০ গোলে। ম্যাচের ইনজুরি টাইমে যুক্তরাষ্ট্রের দানিয়েল উইলিয়ামসের দূর পাল্লার শট জালে আশ্রয় নিলে ৪-১ গোলের ব্যবধানেই জয় নিশ্চিত হয় পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের।

You Might Also Like