দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস উল্টে আহত ১১

দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া মহাসড়কে রাজবাড়ী জেলার চন্দনী উপজেলায় যাত্রীবাহী বাসের চাকা ফেটে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি বসতবাড়ির উপর উল্টে এক পুলিশ কনস্টেবলসহ বাসের অন্তত ১১ যাত্রী গুরতর আহত হয়েছে। তবে ওই বাড়ির কোনো সদস্য আহত হয়নি।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে জেলার চন্দনী উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন-ফরিদপুর জেলার রঘুনদিয়া গ্রামের মোফাজ্জেলের ছেলে হাবিবুর (১৮), রাজবাড়ী জেলার সংগ্রামপুর গ্রামের মোকিম খানের ছেলে ফিরোজ (১৮), পাংশা জেলার কুলটিয়া গ্রামের মোজাহার আলীর ছেলে হজরত আলী (৫০), গান্দিমারা গ্রামের মৃত সমুজুদ্দিনের ছেলে পাংশা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির কনস্টেবল হায়দার আলী (৫৭), কালুখালী উপজেলার দামুকদিয়া গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে রশিদ আলী (২৬), কাশরডাঙ্গি গ্রামের খাতেব আলীর ছেলে আবু বক্কর (৪৬), পাংশা উপজেলার মাছপাড়া ইউনিয়নের আজিম উদ্দিনের ছেলে ফিরোজ (১৮), মঞ্জু সরদারের ছেলে হাফিজ (২৭), গাড়িয়ানা গ্রামের মোসলেমের ছেলে শিহাব (২৮), সদরের খানগঞ্জ ইউনিয়নের ইয়াজ উদ্দিনের ছেলে আইন উদ্দিন শেখ (৬০) ও কুষ্টিয়া জেলার খোকশা উপজেলার মতিয়ার স্ত্রী মোমেনা বেগম (৩৫)।

আহতদের উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এদের মধ্যে ফরিদপুর জেলার রঘুনদিয়া গ্রামের মোফাজ্জেলের ছেলে হাবিবুর (১৮) সদরের খানগঞ্জ ইউনিয়নের ইয়াজ উদ্দিনের ছেলে আইন উদ্দিন শেখ (৬০) এর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে চিকিৎসক।

এ খবর পেয়ে চন্দনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান এবং তাদের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন।

রাজবাড়ী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশন কর্মকর্তা মো. ফজলুল হক ম-ল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, কুষ্টিয়া থেকে রাজবাড়ীগামী একটি বাস দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া মহাসড়কের চন্দনী উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এলে হঠাৎ বাসের সামনের একটি চাকা ফেটে যায়। এ সময় বাসটি রাস্তার পাশে একটি বসতবাড়ির উপর উল্টে পড়ে। এতে ওই বাসের থাকা এক কনস্টেবলসহ ১১ জন আহত হয়। তবে এ ঘটনায় ওই বাড়ির কোনো সদস্য আহত হয়নি।

You Might Also Like