প্লাসিড এক্সপ্রেসের বেস্ট রেমিট্যান্স এ্যাওয়ার্ড লাভ

প্রবাসের সর্বপ্রথম বেসরকারী মানি ট্রান্সফার প্রতিষ্ঠান প্লাসিড এক্সপ্রেসকে রেমিট্যান্স সরবরাহে সেরা অবদান রাখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক বেস্ট রেমিট্যান্স এ্যওয়ার্ড প্রদান করেছে। গত ১ আগস্ট এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ও চীফ ফিন্যান্স অফিসার (সিএফও) মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ বাংলাদেশ ব্যাংকের পদস্থ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এ এ্যওয়ার্ড গ্রহণ করেন। প্লাসিড এক্সপ্রেস কর্তৃপক্ষ গত ৯ আগস্ট সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের একটি রেস্টুরেন্টে এ এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

এ্যওয়ার্ড গ্রহণ বিষয়ে প্লাসিড এক্সপ্রেসের ডিরেক্টর মোহাম্মদ এইচ রশিদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে কাস্টমারদের সেবা দিয়ে আসার যে স্বীকৃতি আমরা পেয়েছি- তাতে আমরা গর্বিত। এ স্বীকৃতি আমাদের জন্য ভবিষ্যতের দায়িত্বকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

প্লাসিড এক্সপ্রেসের প্রেসিডেন্ট ও বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন  প্লাসিড এক্সপ্রেস গত ১৯ বছর ধরে গ্রাহকদের অত্যন্ত নিষ্ঠা, সততা, আন্তরিকতা ও বিশ্বস্থতার মাধ্যমে সেবা দিয়ে আসছেন। ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতিষ্ঠানটি আজ পর্যন্ত বিভিন্ন নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ কোন ধরনের অনিয়মের জন্য একটি ভায়োলেশনও নেই। অন্যদিকে বিশ্বের নামী-দামী  সমস্ত প্রতিষ্ঠান অনিয়মের জন্য মিলিয়ন-মিলিয়ন ডলার জরিমানা প্রদান করেছে। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের ২৭টি স্টেটে ব্যাংকিং ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক মানি ট্রান্সমিটিং-এর জন্য লাইসেন্সপ্রাপ্ত।  যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইটালী, মালয়েশিয়া, সাউথ-ইস্ট এশিয়া, সাউথ এশিয়া, ইউরোপ, আফ্রিকা, ল্যাটিন আমেরিকা, সাউথ আমেরিকার ৫০টি দেশে মানি ট্রান্সমিট করে থাকি।

প্লাসিড এক্সপ্রেসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ ফজলুল হক বলেন, আমাদের এ অর্জন সম্ভবপর হয়েছে সম্মানিত গ্রাহকদের অব্যাহত ভালবাসা ও সহযোগীতার জন্যে। তিনি ভবিষ্যতেও সকল বাংলাদেশী ভাই-বোনদের অব্যাহত সহযোগিতা কামনা করেন এবং প্লাসিড এক্সপ্রেস-এর সেবা গ্রহণের আমন্ত্রণ জানান।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানের হেড অব মার্কেটিং এন্ড একাউন্টস্  মোহাম্মদ মহসীন লিটন।

প্লাসিড এক্সপ্রেস বাংলাদেশের ২২টি ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাস থেকে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে থাকে। এছাড়া তারা ভারত, ফিলিপাইন, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, ল্যাটিন  ও সাউথ আমেরিকা এবং ইউরোপ থেকে টাকা পাঠিয়ে থাকে বলে জানান প্লাসিড এক্সপ্রেস কর্তৃপক্ষ।

You Might Also Like