পেনসেলভেনিয়ার বেনসালেম প্রবাসী বাংলাদেশীদের বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত

আকবর হোসাইন, পেনসেলভেনিয়া থেকে : উৎসবমুখর পরিবেশে নানা আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো যুক্তরাষ্ট্রের পেনসেলভেনিয়ার বেনসালেম সিটিতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের বার্ষিক বনভোজন। গত ২৬ জুলাই রোববার নিউজার্সীর প্রিন্সটনের নয়নাভিরাম কাউন্টি পার্কে দিনব্যাপী এই বনভোজনের আয়োজন করা হয়। প্রবাসী বেনসালেমবাসীদের এটি ১৩তম পিকনিক আয়োজন।প্রায় অর্ধ শতাধিক প্রাইভেট কার যোগে বেনসালেমসহ অন্যান্য সিটির প্রায়  তিন শতাধিক প্রবাসী  এই বনভোজনে অংশ নেন বলে আয়োজক কমিটির অন্যতম কর্মকর্তা সাজেদুল ওয়াদুদ  আসফাক এই  প্রতিনিধিকে জানান। প্রবাসী বেনসালেমবাসী ছাড়াও বিভিন্ন সিটির বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী সপরিবারে এই বনভোজনে যোগ দেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন বিটিএসপি সমিতির সভাপতি জসিম উদ্দিন, সাধরন সম্পাদক আজম মাহবুবসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। পেনসেলভেনিয়ার বনভোজনের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো: শিশু-কিশোর-কিশোরী, মহিলা আর পুরুষদের জন্য একাধিক আকর্ষনীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, স্হানীয় শিল্পীদের মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর আকর্ষনীয় রেফেল ড্র।2nd

বিপুল সংখ্যক বেনসালেমবাসী বনভোজন স্থলে পৌঁছার পর বনভোজন স্হল পরিনত হয় একখন্ড বাংলাদেশে।ছোট-বড় সবার মাঝে ছিল উৎসবের আমেজ।বেলা ১১টার দিকে স্হানীয় বেনসালেমবাসীর  তৈরী করা  সকালের নাস্তা খাওয়ার পর বনভোজন অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।সুস্বাদু  বারবিকিউ পরিবেশনের মাধ্যমে সবার মাঝে ছড়িয়ে পড়ে পিকনিকের আমেজ।ভিন্ন স্বাদের বারবিকিউ শিশু কিশোরদের অন্যতম খাবারে পরিনত হয়।বনভোজনে আগতদের স্বাগত জানান বনভোজন পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দ। সকালের নাস্তা খাওয়ার পর শুরু হয় নানান প্রতিযোগিতা।

দুপুরে পরিবেশিত হয় সুস্বাদু খাবার। বিকেলে ছিলো দই-মিষ্টি আর চা-পান। বনভোজন আয়োজনের সাথে জড়িত ছিলেন আলাউদ্দিন,পলা্‌শ, শাহীন, মাহবুব, বিশ্বজি্ৎ, ‌গোপাল, জহিরুল, আলা, 3কবির,আলী, নজরুল, দীন, নুর আলী, ফয়সাল, আবদুল,রোমেল, সাইফল,আসিফ,মিথু্‌ন, কাজল, জুয়েল, পাবেল।সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন আবদুল শাকুর, অনিক,দিদার,অশোক, সুদীপ,আজম মাহবুব,জসীম উদ্দিন, ইকবাল হোসেন,মিলন, লোমন ও শওকত ইমাম।

চারিদিকে সবুজ গাছ-গাছালীতে ঘেরা মনোরম পরিবেশে প্রবাসী বেনসালেমবাসী এবং অতিথিরা দিনব্যাপী বনভোজন অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। বিশেষ করে শিশু-কিশোর-কিশোরী আর বয়োবৃদ্ধরা নিজের মতো করে আনন্দ উপভোগ করেন। একদিকে গ্রীষ্মের কড়া রোদ আপরদিকে গাছপালার ছায়া সেই শীতল বাতাস সবমিলিয়ে প্রাকৃতিক পরিবেশ ছিলো আরো উপভোগ্য। গাছের নীচে সবুজ খাসের উপর কেউ বা ফোল্ডিং চেয়ার পেতে, কেউ বা রং বে রং-এর চাঁদর বিছিয়ে আরাম-আয়েশে  ক্লান্তি দূর করেন।

You Might Also Like