আলোচিত ২৫ মামলা নিয়ে বেকায়দায় র‌্যাব

নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিক দেলোয়ার হোসেন খুন হন ঠিক দু’সপ্তাহ আগে গত ২৮ মার্চ রাত সাড়ে ৯টায় সোনারগাও উপজেলার কাঁচপুর এলাকার নয়াপুরে। দৈনিক সমাচার ও ডেসটিনির স্থানীয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালাতেন তিনি। ওই ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে তিনি নয়াপুর এলাকায় পৌঁছালে  তাকে কুপিয়ে ও গলাকেটে  হত্যা করা হয়। এই হত্যাকা-ের দু’সপ্তাহের মাথায় র‌্যাব ঘটনার সাথে জড়িত ৫ জনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। র‌্যাব-১১ এর একটি দল বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে হত্যাকা-ের মূলহোতা ইব্রাহিম খলিল ও জাহাঙ্গীর হোসেনকে সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকা থেকে আটক করে। এরপর তাদের দেয়া তথ্য মতে কালাম, মনির ও আব্বাসকে আটক করা হয়। এখন দেলোয়ার হত্যাকা-ের বিচার আলোর মুখ দেখার পথে। র‌্যাব একটি খুনের ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি করে দেলোয়ারের পরিবারকে আশার আলো দেখানোর আইনী ব্যবস্থা করেছে। বাকীটা আদালতের এখতিয়ার। এটি একটি চমৎকার উদাহরণ। র‌্যাবের সফলতাও বটে।

অপরদিকে ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি। এই জোড়া হত্যাকা-ের পর দু’বছরের অধিককাল ২৬ মাস পার হয়েছে। এই আলোচিত সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকা-ের ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করা দূরে থাক, শনাক্তও করা সম্ভব হয়নি। এই ঘটনার তদন্তভার পায় পুলিশ। তাদের ব্যর্থতার পর উচ্চ আদালতের নির্দেশে তদন্তভার গড়ায় র‌্যাবের হাতে। তাদের হাতে সাংবাদিক দম্পতির খুনের ঘটনা যাওয়ার পর সেটি এখন গতিহারার উপক্রম। দু’ দুটি পরিবার আজ তাদের প্রিয় সন্তানদের হারিয়ে, বিচারের আশায় থেকে আজ অন্ধকার দেখছে। তাদের সামনে কোনো বিচারের আলো দেখা যাচ্ছেনা। দু’টি পরিবার আশার আলো দেখবে এমন আইনী ব্যবস্থাও সৃষ্টি করতে পারেনি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। উপরন্তু, দু‘দিন আগে তদন্ত কর্মকর্তা পাল্টিয়েছে র‌্যাব। এটি একটি ব্যর্থতার উদাহরণ। হত্যাকা-ের কারণ যাই হোক না কেন, র‌্যাব কোনো কিনারায় পৌঁছতে পারেনি। এর পেছনে কোনো কারণ আছে কিনা, তা সর্বত্র আলোচিত।

এমন অনেক ব্যর্থতার উদাহরণ সৃষ্টি করেছে র‌্যাব। সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলাসহ আলোচিত ও  চাঞ্চল্যকর ২৫টি মামলার তদন্ত দীর্ঘদিনেও শেষ করতে পারেনি এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন (র‌্যাব)। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আদালতের নির্দেশে তদন্তভার পেয়েও রহস্যের কিনারায় পৌঁছতে পারছে না তারা। তবে র‌্যাব কর্মকর্তারা বলছেন, গত ১০ বছরে ১ হাজার ১২৭টি মামলার তদন্তভার পেয়ে তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সফল। এক হাজার ১১টি মামলার অভিযোগপত্র এবং ৬২টি মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে। এসবের মধ্যে একটি ছাড়া নেই আলোচিত এবং চাঞ্চল্যকর মামলা। কম গুরত্বপূর্ণ মামলার ক্ষেত্রেই র‌্যাব সফল, এটা দাবিযোগ্য। দেশের সর্বাধিক আলোচিত স্পর্শকাতর সাগর-রুনি হত্যাকা-, পাঁচ কোটি টাকার সোনার চালান, মিল্কি হত্যা, রামপুরায় সাংবাদিক আফতাব আহম্মেদ হত্যা মামলা, সাবেক এএসপি ফজলুল হক হত্যা মামলা, গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার চুরির মামলা এবং রাজশাহীর রাজপাড়া থানার ডাবলু হত্যা মামলাসহ ২৫টি মামলার তদন্ত নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে র‌্যাব। দায়িত্বশীলরা বলছেন, শিগগিরই এসব মামলার তদন্তকাজ শেষ হবে। যদিও এমন কথা অনেকদিন থেকেই বলা হচ্ছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক উইং কমান্ডার এটিএম হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আলোচিত যেসব মামলার তদন্তের ভার দেয়া হয়েছে তার বেশির ভাগ মামলার কাজ সম্পন্ন করেছে র‌্যাব। কিছু মামলার তদন্ত চলছে। আশা করি দ্রুত তা সম্পন্ন হবে।’

গত ২৬ মার্চ র‌্যাব পা দিয়েছে এগার বছরে। ১০ বছরে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এক লাখ ৪৬ হাজার ১১৮ অপরাধীকে গ্রেফতার করে তারা। তার মধ্যে ১ হাজার ১১৮ জন তালিকাভুক্ত জঙ্গি ও ৪১৩ জন চরমপন্থী রয়েছে।

সূত্র জানায়, গত ১০ বছরে র‌্যাব ১ হাজার ১২৭টি মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায়। তার মধ্যে ১ হাজার ১১টি মামলার তদন্ত সম্পন্ন করে অভিযোগপত্র দিয়েছে তারা। আর ৬২টি মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়া হয়। আমিনবাজারে নিহত ছয় কলেজ ছাত্রের বিরুদ্ধে পুলিশের দায়ের করা মামলা চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয় র‌্যাব। তবে এখনো তদন্ত ঝুলে থাকা ২৫টি মামলার মধ্যে সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলাটি অন্যতম। এ মামলার রহস্য উদঘাটন করতে বারবার হোঁচট খাচ্ছে তারা। খুনীদের শনাক্ত করতে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য প্রায় অর্ধশত আলামত আমেরিকায় পাঠানো হয়। তারপরও কাক্সিক্ষত ফল আসছে না। তাছাড়া এ মামলার সর্বশেষ অবস্থা জানাতে তাদের আদালতে পর্যন্ত যেতে হয়।

র‌্যাব সূত্র জানায়, চলতি বছরের ২ জানুয়ারি রমনা থানায় ১ হাজার ৩১৪ ভরি সোনার চালান আটক হওয়া মামলা, গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর রামপুরায় সাংবাদিক আফতাব আহম্মেদ হত্যা মামলা, গত বছরের ৩০ জুলাই গুলশানে যুবলীগ নেতা মিল্কি হত্যা, গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর উত্তরায় বিপুল পরিমাণ ভিওআইপি সরঞ্জামাদিসহ ৩৫ বিদেশী নাগরিক গ্রেফতার মামলা, চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি কিশোরগঞ্জে সোনালী ব্যাংকে সাড়ে ১৬ কোটি টাকা লুট হওয়া মামলা, গত বছরের ২৯ জুলাই সিআইডির সাবেক এএসপি ফজলুল হক হত্যা মামলা, ২০১৩ সালের ১২ জুলাই গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার চুরির মামলা এবং রাজশাহীর রাজপাড়া থানার ডাবলু হত্যা মামলার তদন্তে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, র‌্যাবের মামলার মধ্যে বর্তমানে বিচারাধীন ৭৭৯টি। বিচার সম্পন্ন হয়েছে ১৩০টি মামলার। সাজার হার শতকারা ৫৬ ভাগ। খালাসের হার ৪৪ ভাগ। অন্যান্য সংস্থা থেকে হস্তান্তরকৃত মামলার সংখ্যা ২৮টি। ২০১২ সালের ২৩ অক্টোবর গাজীপুরের জয়দেবপুর থানা এলাকায় সংগঠিত স্কুল ছাত্র অয়ন হত্যা, গুলশানে গৃহবধূ ফাতিমা সুলতানা ইয়েন হত্যা, খিলক্ষেতে শিশু ইসরাত জাহান ইভা অপহরণ-হত্যা, সাভারের আমিনবাজারে নিরাপরাধ ছয় কলেজ ছাত্র হত্যা, ঝিনাইদহের শৈলকুপায় বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলাম অপহরণ ও হত্যা, চট্টগ্রামে দুই লাখ ২৭ হাজার পিছ ইয়াবা মামলাসহ কয়েকটি চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্তভার পরে র‌্যাবের ওপর ন্যাস্ত হয়।

কালো পোষাক পরে অস্ত্র হাতে আচমকা নেমে পড়া বাংলাদেশ পুলিশ এর বিশেষায়িত বাহিনী এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। সময়ের প্রয়োজনে বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে ‘বাংলাদেশ আমার অহঙ্কার’ স্লোগান নিয়ে ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ এলিট ফোর্স হিসেবে অপরাধীদের যমদূত হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে র‌্যাব। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই র‌্যাব জঙ্গি, চরমপন্থী ও সন্ত্রাস দমন, অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র, গোলাবারূদ ও অবৈধ মাদকদ্রব্য উদ্ধার, অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা রোধ, ভেজালবিরোধী অভিযান এবং জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা কর্মসূচিতে ভূমিকা রেখে আসছে। নানা কর্মসূচি আর কার্যক্রমের কারণে বিগত দিনগুলোতে আলোচিত-সমালোচিত ছিল এই বাহিনী  । পাশাপাশি বিভিন্ন প্রশংসারও দাবীদার হয়েছে। বর্তমান সরকারের আমলে এসে রাজনৈতিক কাজে র‌্যাবকে ব্যবহারের ফলে “র‌্যাব” তার কাক্সিক্ষত সাফল্য পাচ্ছেনা বলে বিশ্লেষকদের অভিমত।

You Might Also Like