বগুড়ায় পুলিশ-সন্ত্রাসী গুলিবিনিময়

বগুড়ায় মঙ্গলবার রাতে পুলিশের সঙ্গে সন্ত্রাসীদের গুলিবিনিময় হয়েছে। এ সময় দুই কনস্টেবল আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এক সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার এবং একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন ও গুলি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আরেক ঘটনায় গুলি ও পিস্তলসহ এক আইনজীবী ও তার দুই সহযোগীকে আটক করেছে পুলিশ।

জেলা পুলিশের মিডিয়া সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারী পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) গাজিউর রহমান প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে বগুড়া সদর উপজেলার সাখারিয়া নামাবালা গ্রামে দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়কের পাশে জনৈক জসিম উদ্দিনের পরিত্যক্ত বাড়িতে ৭/৮ জন সন্ত্রাসী অবস্থান করছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সদর থানার একদল পুলিশ সেখানে উপস্থিত হয়। সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ৭/৮ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে। এ সময় পুলিশও ৫ রাউন্ড গুলি চালায়। এতে পুলিশ কনস্টেবল রেজাউল করিম ও উজ্জ্বল আহত হন।

এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। এ সময় জুম্মন হেসেন নামের এক সন্ত্রাসীকে ডান পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আটক করে পুলিশ।

জুম্মনের কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন ও চার রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

গুলিবিদ্ধ জুম্মনকে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জুম্মন শহরের উত্তর চেলোপাড়ার সামছুল ইসলামের ছেলে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার রাইজিংবিডিকে জানান, জুম্মন পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা আছে।

অপরদিকে মঙ্গলবার রাত সোয়া ৯টার দিকে মোকামতলা-জয়পুরহাট মহাসড়কের শিবগঞ্জ উপজেলার আমতলী বন্দরে মোটরসাইকেল তল্লাশিকালে শিবগঞ্জ থানার পুলিশ একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগজিন ও ৫ রাউন্ড গুলিসহ তিনজনকে আটক করে। আটককৃতরা হলেন- অ্যাডভোকেট হজরত বেলাল (৪৫), পার্থ প্রতীম দাস গুপ্ত (৪৭) ও মশিউল আলম (৪৫)।

You Might Also Like