পেট্রল বোমা হামলার ঘটনার আন্তর্জাতিক তদন্ত দাবি বিএনপির

বাংলাদেশে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের টানা তিন মাসের সরকার বিরোধী আন্দোলনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে পেট্রলবোমা মেরে মানুষ হত্যা করা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন অভিযোগের আন্তর্জাতিক তদন্তের দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

 

আজ (শনিবার) সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সস্মেলনে দলের পক্ষে বিএনপি মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন এ দাবি জানান। বাজেট অধিবেশনের সমাপনী দিনে টেবিলে উপস্থাপিত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, নাশকতার হুকুমদাতা হিসেবে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিচার বিশেষ ট্রাইব্যুনালে করার পরিকল্পনা আছে সরকারের।

 

বিএনপি মুখপাত্র বলেন, পেট্রলবোমা কারা মেরেছে তা উদ্ঘাটনে আন্তর্জাতিক তদন্ত হওয়া দরকার। সরকার বলছে বিএনপি পেট্রোলবোমা মেরেছে। বিএনপি বলছে, পেট্রোলবোমা মারার সঙ্গে বিএনপি জড়িত নয়। এ অবস্থায় আমাদের দাবি হচ্ছে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে একটি তদন্ত কমিটি করে প্রকৃত জড়িতদের চিহ্নিত করা।

 

ড. রিপন বলেন, বিএনপি কখনো নাশকতার সঙ্গে জড়িত ছিলো না। তারপরও যখন প্রধানমন্ত্রী ও একটি দলের প্রধানের পক্ষ থেকে এসব অভিযোগ করা হয়, তখন সঠিক তদন্ত দুরুহ হয়ে পড়ে। স্বাভাবিক তদন্ত হলে তদন্তকারীদের কাছ থেকে ন্যায়সঙ্গত তদন্ত আশা করা যায় না। তাই জাতিসংঘের অধীনে একটি নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান দিয়ে তদন্ত চায় বিএনপি।

 

তিনি আরও বলেন, আন্তর্জাতিক তদন্ত হলে নাশকতায় সত্যিকার অর্থে কারা জড়িত তা বেরিয়ে আসবে। তখন বিএনপি চেয়ারপারসনের কথার যথার্থতা প্রমাণিত হবে, এই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে চাই। কিন্তু আন্তর্জাতিক তদন্ত না করে যদি বিরোধী দল বা শীর্ষ নেতৃত্বকে ধ্বংস করার চেষ্টা চালানো হয় গণতন্ত্রের জন্য তা ভালো হবে না।

 

বিএনপি চেয়ারপরাসন খালেদা জিয়া- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একই বৃত্তে দুটি ফুল আখ্যা দিয়ে রিপন বলেন, তাদের দুজনের একজন ঝরে গেলে আরেকজনও ঝরে যাবেন। একজনের বিনাশ ঘটলে, অন্যজনেরও বিনাশ ঘটবে। বিএনপির বিনাশ হলে আওয়ামী লীগেরও বিনাশ হবে আর আওয়ামী লীগের বিনাশ ঘটলে বিএনপিরও বিনাশ ঘটবে।

 

গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার ব্যাঘাত ঘটলে দেশে অশুভ শক্তির উত্থান ঘটবে, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের এমন বক্তব্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করে পত্রিকার উদ্ধৃতি দিয়ে রিপন বলেন, এই উপলব্ধির জন্য তাকে স্বাগত জানাই। তবে এটা বলতে পারি, শুভ বা অশুভ নয়, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ব্যাহত হলে অনিবার্যভাবে বিকল্প শক্তির উত্থান ঘটবে। তখন কারো কিছু করার থাকবে না। এ সময়, আশরাফুল ইসলামকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে সরানোর বিষয়টি নিয়ে স্পষ্ট ব্যাখ্যা দেয়ারও দাবি জানান তিনি।

 

এদিকে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম। আজ (শনিবার) সকালে তাকে রাজধানীর ইব্রাহীম কার্ডিয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডা.রফিকুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছেন তরিকুল।

You Might Also Like