নিউইয়র্কে গাফফার চৌধুরীর সভা পন্ড, প্রতিবাদ ও জুতা মিছিল

যুক্তরাষ্ট্র সফররত বিশিষ্ট লেখক আব্দুল গাফফার চৌধুরীর পৃথক দু’টি আলোচনা সভা পন্ড করে দিয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশীরা। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী পরিবারের ব্যানারে আয়োজিত প্রথম আলোচনা সভা ছিল জ্যামাইকা তাজমহল পার্টি সেন্টারে। রোববার সন্ধ্যায় এই সভা হওয়ার কথা ছিলো। জানা গেছে, গত ৩ জুলাই বাংলাদেশ মিশনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আল্লাহ তায়ালার নামসহ নবী-রাসুল, ধর্ম, ইসলাম প্রভৃতি স্পর্শকারতর বিষয়ে বক্তব্যের প্রেক্ষিতে মুসল্লিরা যুক্তরাষ্ট্রে এই লেখককে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে প্রতিবাদের ডাক দেয়।

জানা গেছে, জ্যামাইকার তাজমহল পার্টি সেন্টারে আয়োজিত যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী পরিবার, শহীদ পরিবার, মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতার পক্ষের উদ্যোগে ‘আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল’ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন অমর একুশ ‘র গানের লেখক আব্দুল গাফফার চৌধুরী। ইসলাম ধর্মের বিভিন্ন বিষয়ে আপত্তিকর বক্তব্য দেওয়ায় মুসল্লিরা তার প্রতিবাদে তাজমহলের সামনে গাফ্ফার চৌধুরী অবাঞ্চিত ঘোষণা করে প্রতিবাদ সভার ডাক দেয়। মুসল্লিদের প্রতিবাদের মুখে অনুষ্ঠান বাতিল করে আয়োজক সংগঠন পরবর্তীতে সভার স্থান নির্ধারণ করেন ব্রুকলীনের ৪৯০ ম্যাকডোনাল্ড এভিনিউর সন্ধীপ এসোসিয়েশনের কার্যালয়ে। এ খবর অত্র এলাকার মুসল্লিরা জানার পর বাদ আসর ব্রুকলীন বায়তুল Gaffar-Nabi comanderজান্নাহ, দারুল জান্নাহ, ব্রুকলীন ইসলামিক সেন্টার থেকে শতশত মুসল্লি জুতা হাতে জড়ো হন সন্দ্বীপ এসোসিয়েশনের কার্যালয়ের সামনে। এতে আওয়ামী পরিবারের সদস্যরা পরবর্তীতে চার্চ এভিনিউর উপর ‘কাদের ফাউন্ডেশন কার্যালয়ে’ অনুষ্ঠান করার প্রস্তুুতি নিলে সেখানেও মুসল্লিরা হানা দেয় এবং দরজার সামনে দাড়িঁয়ে থাকে। এতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নুরুন্নবী কমান্ডার এ প্রসঙ্গে কথা বলতে গেলে মুসলিদের তোপেরমুখে পড়ে। পরে পুলিশের সাহায্যে স্থান ত্যাগ করে বলে জানা যায়।

জানা গেছে, জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনে গাফফার চৌধুরী বক্তব্যদান কালে উপস্থিত অতিথিদের প্রায় সভায় আওয়ামী লীগের লোক ছিল। এদের অনেকে ইসলাম ধর্ম, আল্লাহ-রাসুল নিয়ে এ বক্তব্যে সমর্থন করে হাসতে ছিল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবাসী বলেন, আমি অনুষ্ঠানে ছিলাম, গাফফার সাহেবের বক্তব্য শুনেছি। তবে তার বক্তব্য বিষয় বস্তুর (বাংলাদেশ : অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যত) বাইরে চলে গিয়েছিল। এমন বিষয়ে আল্লাহ তায়ালার নাম সহ নবী-রাসুল, ধর্ম, ইসলাম প্রভৃতি স্পর্শকারতর বিষয়ে এতো বক্তব্য না রাখলেই ভালো হতো। ঐ অনুষ্ঠানে তিনি দেশ নিয়ে যত না কথা বলেছেন তার চেয়ে বেশী কথা বলেছেন হিন্দু-মুসলিম বিষয়ে। যা অনেককেই বিব্রতবোধ করেছে।

উল্লেখ্য, বির্তকিত এ লেখক এর আগে নিউইয়র্কে সফরে এসে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধেও বিষোদাগার করেন।

You Might Also Like