পদ্মার চর এলাকায় জঙ্গিদের অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়

পদ্মার চর এলাকায় জঙ্গিদের অস্ত্র চালালনোর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। আর এই প্রশিক্ষণ দেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত ও চাকরীচ্যুত সদস্যরা।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

বুধবার রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে নতুন জঙ্গি সংগঠন ‘বাংলাদেশ জিহাদী গ্রুপ’এর কমান্ডার ও অর্থ যোগানদাতাকে গ্রেফতারের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনটি আয়োজন করা হয়।

মনিরুল ইসলাম বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের গ্রেফতারকৃতরা পদ্মার ওপারের কোন এক চরে এবং উত্তরবঙ্গের সীমান্ত এলাকায় জঙ্গিদের অস্ত্র ও অন্যান্য জিহাদী প্রশিক্ষণ দেয়ার কথা জানিয়েছে। প্রশিক্ষণের পর সিরিয়া এবং আফগানিস্তানে গিয়ে জিহাদ প্রতিষ্ঠা করতো। পরবর্তীতে বাংলাদেশের ইসলামী খিলাফাত প্রতিষ্ঠার ও বৈষম্যমূলক সমাজ ব্যবস্থা দূর করার নামে নাশকতার পরিকল্পনা ছিল তাদের।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছেন, বাংলাদেশ জিহাদী গ্রুপের কমান্ডার মো. আসাদুজ্জামান এবং অর্থদাতা ফিরোজ মো. তমাল।

তাদের কাছ থেকে তিনটি বিদেশী পিস্তল, ১৫ রাউন্ড গুলি এবং ১ কেজি বিস্ফোরক দ্রব্য ও ২ টি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়েছে।

মনিরুল ইসলাম জানান, সংগঠনের অর্থদাতা তমাল একজন সরকারী কর্মকর্তার ছেলে। তাদের রাজধানীতে তাদের ১৭ টি ফ্ল্যাট-বাড়ি রয়েছে। অস্ত্র বিস্ফোরকসহ সকল টাকা সে যোগান দিত।

আসামিদের বিরুদ্ধে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

You Might Also Like