এগিয়ে থেকেও জয় হাতছাড়া

এগিয়ে থেকেও জিততে পারলো না বাংলাদেশ। বুধবার গোয়ার জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে প্রীতি ম্যাচে ভারতের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে তারা।

ভারতীয় অধিনায়ক সুনীল ছেত্রীর জোড়া গোল আর রেফারির ‘বিতর্কিত’ সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের জয় হাতছাড়া হয়।

ম্যাচের ১৪ মিনিটে সুনীল ছেত্রীর চমৎকার এক গোলে এগিয়ে যায় ভারত। মাঝ মাঠ থেকে একটি বল পেয়ে বক্সে ঢুকে আগুয়ান গোলরক্ষকের পাশ দিয়ে আড়াআড়ি শটে গোল করেন সুনীল।

এক গোলে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই গোল শোধে মরিয়া হয়ে উঠে। ফল পেতেও বেশিক্ষণ সময় লাগেনি।

৫১তম মিনিটে সমতা আনেন বাংলাদেশ ফরোয়ার্ড মিঠুন চৌধুরী। মিডফিল্ডার সোহেল রানার ক্রস থেকে পাওয়া বল ফাঁকায় দাঁড়ানো মিঠুন আলতো টোকায় জালে জড়ান।

সমতায় ফিরে উজ্জিবীত বাংলাদেশ অল্প কিছুক্ষনের মধ্যে এগিয়েও যায়। ম্যাচের ৬৪ মিনিটে আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান বাড়ান মামুনুলরা। মিডফিল্ডার হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাসের ক্রস ভারতীয় ডিফেন্ডার অর্নব মন্ডল বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়িয়ে দেন বল।

এরপর জয়ের স্বপ্নই দেখছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ইনজুরি সময়ের তৃতীয় মিনিটে গোল করে সমতা আনেন সেই সুনীল ছেত্রী। বল নিয়ে বক্সে ঢুকে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। দুই ডিফেন্ডার নাসিরউদ্দিন চৌধুরী ও রায়হান হাসান সুনীলকে রুখতে না পারায় মূলত বাংলাদেশকে গোলটি হজম করতে হয়।

খেলা শেষ হওয়ার কয়েক সেকেন্ড বাকি থাকতে বাংলাদেশ আরো একটি গোল পেয়েও যায়। তবে রেফারি তা ফাউল দেখিয়ে বাতিল করে দেন। অবশ্য এ জন্য ভারতীয় গোলরক্ষক সুব্রত পালকে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়।

ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ শেষবার জিতেছিল ২০০৩ ঢাকার সাফের সেমি-ফাইনালে। কাঠমান্ডুতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপেও এই সুনীল ছেত্রীর ইনজুরি সময়ে করা গোলেই বাংলাদেশের জয় হাতছাড়া হয়েছিল। সে ম্যাচে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে ড্র করে বাংলাদেশ। এবারও ভারতীয় অধিনায়কের জন্য জয়বঞ্চিত হলো বাংলাদেশ।

You Might Also Like