রাজনীতিতে সৌজন্যবোধ সোনার হরিণ: কাদের

রাজনীতিতে সৌজন্যবোধ সোনার হরিণে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেন, ‘বর্তমানে সৌজন্যে (এলাকাবাসী বা ব্যক্তির নামে) পোস্টার আছে, ব্যানার আছে, কিন্তু সৌজন্যবোধ নেই।’
রাজধানীর সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার বিকেলে আলোচনা সভায় ওবায়দুল কাদের এ সব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ এ সভার আয়োজন করে।
বিলবোর্ড দেখলে লজ্জা হয় উল্লেখ করে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিলবোর্ড-পোস্টারে ছবি দিয়ে নেতা হওয়া যায় না। বিলবোর্ড পোস্টারের ছবিতে দেখি এক ররকম। সামনে আসলে আরেকরকম, চেনা যায়না। মানুষ যা পছন্দ করে না, তা করবেন না। কারণ চেহারায় ভোট আসবে না। ভোট আসবে কর্মে, আচরণে। এ সব ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারে দেওয়া রাজনীতিবিদদের ছবি মুছে যাবে।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাকে রাস্তায় থাকতে দিন। আমাকে প্রোগ্রামে ডাকবেন না। আমরা যারা দলের মানুষ, তারা তো দলের কথা বলবোই। আমাদের বাদ দিয়ে যারা এ চেতনাকে ধারণ করে তাদের নিয়ে অনুষ্ঠান করুন। বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনাকে একটি গণ্ডিতে আবদ্ধ করবেন না।’
আয়োজকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘মন্ত্রী আসলে টেলিভিশন আসবে— এই চিন্তা চেতনার কালচার থেকে বেরিয়ে আসুন।’
এ সময় চল্লিশ বছরের ইতিহাসে শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সবচেয়ে বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ, দক্ষ প্রশাসক ও সফল কুটনীতিক বলে তিনি উল্লেখ করেন।
সরকারের বিভিন্ন সফলতা তুলে ধরে দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের প্রচারমুখী হওয়ার তাগিদ দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেন, ‘তথাকথিত ভাষন বাদ দিন। প্রচারমুখী হোন। এখন গদবাধা কথা বললে কেউ শুনবে না, কারও পেটও ভরবে না।’
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সরকারের অর্জনের তুলনায় প্রচার কম, অপপ্রচার বেশি। যেগুলোর রেকর্ড অর্জন তারও প্রচার নেই। কিন্তু অপপ্রচার চলছেই।’
সাবেক বিচারপতি এ এফ এম মেজবাহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, ব্যারিস্টার আমিরুল ইসলাম, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের নেতা ইকবাল আর্সেনাল, এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কামরুল হাসান, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদিউজ্জামান ডাবলু প্রমুখ।

You Might Also Like