মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে হবিগঞ্জের রাজ্জাক গ্রেপ্তার

মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে হবিগঞ্জের আবদুর রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার মৌলভীবাজারের বানিয়াচং থেকে রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে রোববার তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল-২।

ওই দিন মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে হবিগঞ্জের দুই ভাই মহিবুর রহমান ও মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) দাখিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। তাঁদের বিরুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ প্রভৃতি মানবতাবিরোধী অপরাধের চারটি অভিযোগ আনা হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি সুলতান মাহমুদ ও তাপস কান্তি বল রোববার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে এ আনুষ্ঠানিক অভিযোগ জমা দেন। পরে অভিযোগ আমলে নেওয়ার বিষয়ে আদেশের জন্য ২৫ মে দিন ধার্য করেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যের ট্রাইব্যুনাল-২।

একইসঙ্গে এই মামলায় হবিগঞ্জের আবদুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল-২। রাষ্ট্রপক্ষ জানিয়েছে, রাজ্জাক মামলার দুই আসামি মহিবুর ও মজিবুরের সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন।

গত ২৯ এপ্রিল হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার খাগাউড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান ও তাঁর ভাই মহিবুর রহমানের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করে মানবতাবিরোধী অপরাধ তদন্ত সংস্থা। তদন্তে মজিবুর ও মহিবুরের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধকালে হত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন ও অপহরণের চারটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব অভিযোগের বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের ২১ জন সাক্ষী রয়েছে।

তদন্ত সংস্থা জানায়, মহিবুর ও মুজিবুর মুক্তিযুদ্ধকালে নিজ এলাকায় রাজাকার বাহিনী গড়ে তোলেন।

ট্রাইব্যুনাল পরোয়ানা জারি করলে গত ১০ ফেব্রুয়ারি হবিগঞ্জ থেকে মুজিবুর ও মহিবুরকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। পরে তাঁদের ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়, ট্রাইব্যুনাল তাঁদের কারাগারে পাঠান। ১১ মার্চ তাঁদের সেফ হোমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্ত সংস্থা।

You Might Also Like