সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সর্বোচ্চ ৭৫ হাজার, সর্বনিম্ন ৮২৫০ টাকা মূল বেতনের সুপারিশ

বাংলাদেশে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নতুন বেতন কাঠামো বিষয়ে পর্যালোচনা কমিটির প্রতিবেদন আজ বুধবার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে জমা দেয়া হয়েছে। এতে সর্বোচ্চ মূল বেতন ৭৫ হাজার এবং সর্বনিম্ন ৮ হাজার ২৫০ টাকা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

আজ (বুধবার) সকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞার নেতৃত্বাধীন কমিটি সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর কাছে এ প্রতিবেদন জমা দেন। পরে দুপুরের দিকে অর্থমন্ত্রী প্রতিবেদনের বিষয়ে সাংবাদিকদের অবহিত করেন। অর্থমন্ত্রী জানান, পর্যালোচনা কমিটি ২০টি গ্রেডে বেতন দেয়ার সুপারিশ করেছে। নতুন বেতন কাঠামোতে টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড থাকবে না। ড. ফরাসউদ্দিন কমিশন এগুলো তুলে দেয়ার সুপারিশ করেছিল, সে সুপারিশ বহাল রাখা হয়েছে।

ড. ফরাসউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বাধীন পে-কমিশন ১৬টি গ্রেডে বেতন দেয়ার সুপারিশ করেছিল। ওই কমিশন সর্বোচ্চ মূল বেতন ৮০ হাজার এবং সর্বনিম্ন ৮ হাজার ২০০ টাকা করার প্রস্তাব করেছিল।

গত বছরের ২১ ডিসেম্বর সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য নতুন বেতনকাঠামোর সুপারিশ করে জাতীয় বেতন ও চাকরি কমিশন। কমিশনের চেয়ারম্যান বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন সব সদস্যকে নিয়ে অর্থমন্ত্রীর কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিবেদনটি জমা দিয়েছিলেন। কমিশন ৬৭ দশমিক ৭ শতাংশ বেতন বাড়ানোর সুপারিশ করে। এর আগে সাতবার বেতন বাড়ানো হয়। সপ্তমবারে ৬৩ শতাংশ বেতন বাড়ানো হয়েছিল।

আগামী ১ জুলাই থেকে নতুন বেতন কাঠামো অনুযায়ী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বেতন পাবেন। বর্তমানে প্রায় ১৪ লাখ সরকারি চাকরিজীবী রয়েছেন। নতুন এই বেতন কাঠামোতে সরকারি চাকরিজীবীর বেতন ৮৭ থেকে ১০১ শতাংশ পর্যন্ত বাড়বে।

এর ফলে নিত্যপণ্যের বাজারে কতোটা প্রভাব পড়বে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন “এটার কোনো ইমপ্যাক্ট হয় না।”

অর্থমন্ত্রী বলেন, “প্রত্যেকেরই বেতন বাড়ানো উচিত। প্রতি বছর অটোমেটিক্যালি হওয়া উচিত। প্রতিবেদনে এটি সুপারিশ করা হয়েছে।”

প্রতিবেদনের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব সাংবাদিকদের বলেন, “কমিটির সুপারিশ কমিশনের সুপারিশ থেকে কম হবে এটাই স্বাভাবিক। অতীতেও তাই হয়েছে। কমিশনের রিপোর্ট দাখিলের পর বাজারের ওপর কোনো প্রভাব পড়েনি, তাই এ পর্যায়েও হওয়ার কোনো যুক্তি নাই।”

You Might Also Like