দামুড়হুদায় যুবকের হাতের কবজি কেটে ফেলেছে প্রতিপক্ষ

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার খাঁ পাড়ায় সালিশের জরিমানার টাকা না দেওয়াকে কেন্দ্র করে অভিযুক্ত এনামুল (৩০) কে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ডান হাতের কবজি কেটে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে প্রতিপক্ষ শফি ও কালু সহ তাদের লোকজন। আহত এনামুল একই উপজেলার কেশবপুর গ্রামের মৃত এলাহী বক্সের ছেলে। সোমবার দিবাগত রাত ৯ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে শফি (৪৩) ও কালু (৩৫) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে তাদেরকে চুয়াডাঙ্গা আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সোমবার দিবাগত রাতে এনামুল চুয়াডাঙ্গা শহর থেকে আলমসাধু যোগে বাড়ি ফেরার পথে খাঁ পাড়াস্থ কুটিরপাড়া রাস্তার কাছে পৌছায়। এসময় শফি ও কালু সহ ৭/৮ জন তাকে আলামসাধু থেকে নামিয়ে জরিমানার টাকা দিতে বলে। সে দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ডান হাতের কবজি কেটে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক। রাতেই আহতের মা আবেদা খাতুন বাদী হয়ে শফি ও কালু সহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করে দামুড়হুদা থানায় একটি মামলা দায়ের করে। এরপর পুলিশ খাঁ পাড়ার মৃত সোনাই খাঁর ছেলে শফি ও একই পাড়ার মৃত ফকির খাঁর ছেলে কালুকে গ্রেফতার করে।

উল্লেখ্য, গত ২ মাস ধরে খাঁ পাড়ার কালুর স্ত্রী ময়নার সাথে পার্শ্ববর্তী কেশবপুরের এনামুলের পরকীয়া প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এর কিছু দিন পর উভয়ই দেখা করে তারানীপুর ইটভাটার অদূরে গোপন কথা বলার সময় স্থানীয় জনতা তাদেরকে ধরে এনামুলকে শালিস বৈঠকের মাধ্যমে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করে। জরিমানার টাকা এনামুল দিতে তাল-বাহানা শুরু করে। এরপর সোমবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে।

দামুড়হুদা থানার ওসি কামরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আটককৃতদেরকে মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে চুয়াডাঙ্গা আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

You Might Also Like