বিচ্ছিন্নতাবাদী জঙ্গিজোটকে অস্ত্র দিচ্ছে চীন: দাবি ভারতীয় গোয়েন্দাদের

উত্তর-পূর্ব ভারতের ৯টি স্বাধীনতাকামী জঙ্গি সংগঠনের জোট ‘ইউনাইটেড ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট অব ওয়েস্ট ইস্ট সাউথ এশিয়া’কে চীন অস্ত্র সরবরাহ করছে বলে দাবি করেছে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা।’ চীনা গুপ্তচর সংস্থা প্রায় ২০ কোটি টাকার অস্ত্র দিয়েছে বলে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন।

গোয়েন্দাদের দাবি, গত ১৭ এপ্রিল মিয়ানমারের সাগিং ডিভিশনের টাগায় উত্তর-পূর্ব ভারতের ৯টি জঙ্গি সংগঠন ‘ইউনাইটেড ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট অব ওয়েস্ট ইস্ট সাউথ এশিয়া’ নামে যৌথ মঞ্চ গঠন করেছে। চীনা গুপ্তচর সংস্থা মিনিস্ট্রি অব স্টেট সিকিউরিটি বা ‘এমএসএস’-এর সহযোগিতাতেই এই যৌথ মঞ্চ গঠন করা হয়েছে।

গোয়েন্দারা বলছেন, চীনের কাছ থেকে পাওয়া অস্ত্রশস্ত্র মিয়ানমারের টাগায় এনএসসিএন-খাপলাং গোষ্ঠীর ঘাঁটিতে রাখা হয়েছে। সেখানে অত্যাধুনিক স্বয়ংক্রিয় রাইফেল থেকে শুরু করে সিজেড-৭৫ পিস্তল, রকেট প্রপেলড গ্রেনেডস (আরপিজি), হ্যান্ড গ্রেনেড ইত্যাদি মজুদ করা হয়েছে। এসব প্রাণঘাতি অস্ত্রশস্ত্র চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত নর্থ ইন্ডসাট্রিজ কর্পোরেশনে তৈরি।

টাগার নাগা অধ্যুষিত স্বশাসিত এলাকায় মনিপুর, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, অসম ও ত্রিপুরার বিভিন্ন জঙ্গিসংঠনের ক্যাম্প রয়েছে। এখানে প্রায় দু’হাজার ভারতীয় জঙ্গি প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। এনএসসিএন– খাপলাং জঙ্গিগোষ্ঠীর মাধ্যমে এসব জঙ্গিশিবির পরিচালিত হয়।

ভারতীয় সেনা গোয়েন্দারা বলছেন, চীনের কাছ থেকে অস্ত্রশস্ত্র পেয়ে জঙ্গিদের যৌথ মঞ্চ এরইমধ্যে তাদের তৎপরতা শুরু করে দিয়েছে। গত ৩ মে নাগাল্যান্ডের মন জেলায় ভারতীয় সেনাদের উপর যে হামলা হয়েছিল তাতে লেজার রাইফেল এবং রকেট প্রপেলড গ্রেনেডস বা আরপিজিসহ যেসব অস্ত্র জঙ্গিরা ব্যবহার করে তার সবই চীনা কারখানায় তৈরি। এই হামলায় অসম রাইফেলসের ৮ জওয়ান নিহত হয় ওই সময়। এছাড়া গত ২৫ এপ্রিল কোহিমার রাজভবন রোডে প্রহরারত জওয়ানদের ওপর জঙ্গিরা যে গ্রেনেড ছুঁড়েছিল সেটিও চীনা কারখানার তৈরি। এসব নিয়ে তথ্য প্রমাণ সামনে আসার পরেই নড়েচড়ে বসেছে ভারতীয় গোয়েন্দা এজেন্সিগুলো।

You Might Also Like