সুন্দরবনে সারবাহী কার্গো ডুবি : কমিটি গঠন

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের মরা ভোলার বিমলের চর এলাকায় ডুবে যাওয়া কার্গো থেকে ভেসে উঠা সার সরানোর কাজ শুরু করেছে বন বিভাগ।

বুধবার সকাল থেকেই সার সরানোর কাজ শুরু করা হয়। তবে এখনও পর্যন্ত মালিক পক্ষ অথবা সরকারভাবে কোন উদ্ধার অভিযান শুরু হয়নি।

এদিকে বুধবার সকালে বাগেরহাট জেলা প্রশাসক, খুলনা ও বাগেরহাটের বন কর্মকর্তাগণ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তারা এদিন বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছান। তবে কার্গোটির দূর্ঘটনাস্থলের আশপাশ এলাকায় ডুবো চরের কারণে  কোন উদ্ধারকারী জাহাজ সেখানে ভিড়তে পারছে না। এছাড়া নদীতে প্রচুর স্রোত থাকায় উদ্ধার কাজ ব্যাহত হচ্ছে বলে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আমীর হোসাইন চৌধুরী জানান, দূর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে সুন্দরবন বিভাগের উদ্যোগে পূর্ব বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আমীর হোসাইন চৌধুরীকে প্রধান করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

মংলা থেকে পাঁচ’শ টন পটাশ সার (লাল সার) নিয়ে এম.ভি জাবালে নুর নামে একটি কার্গো জাহাজ রবিবার সন্ধ্যায় পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের মরা ভোলা এলাকার ভোলা নদী অতিক্রম করছিল। এ সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চরে আটকে যায়। মঙ্গলবার জাহাজের মালিক কর্তৃপক্ষ অপর দু’টি কার্গোর সাহায্যে “জাবালে নূর” কার্গো জাহাজটি উদ্ধারের চেষ্টকালে তলা ফেটে পানি উঠে ধীরে ধীরে জাহাজটি কাত হয়ে আংশিক ডুবে গেছে।

শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন জানান, জাহাজটি রবিবার চরে আটকে গেলে মঙ্গলবার বিকালে কার্গো জাহাজটিকে উদ্ধার করতে গেলে জাহাজের তলা ফাটা দেখা যায়। এ সময়  জাহাজটিতে পানি ঢুকে  কিছুটা ডুবে কাত হয়ে গেছে। জাহাজে সার থাকায় পরিবেশের কিছু ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে এখনও সুন্দরবনের কোন ক্ষতি হয়নি।

শেলা নদীতে তেলবাহী ট্যাঙ্কার ডুবির ৫ মাস পর  শরণখোলা রেঞ্জের মরা ভোলা এলাকার ভোলা নদীতে সারবাহী কার্গো ডুবির এই দুর্ঘটনা ঘটে। জাহাজটি সার বোঝাই করে মংলা থেকে সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়িয়া যাচ্ছিল।

You Might Also Like