‘খালেদাকে নিরাপত্তা দেওয়া প্রয়োজন ছিল’

একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিএনপি নেত্রীকে আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রটেকশন দেওয়ার প্রয়োজন ছিল বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্র সফররত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। একইসঙ্গে তিনি দাবি করেন- খালেদা জিয়ার ওপর হামলা সাধারণ মানুষের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ।

ম্যানহাটনের জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের স্থায়ী কার্যালয়ের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে স্থানীয় সময় বুধবার (২২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এক মতবিনিয় সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রীর ওপর কারা হামলা করেছে সেটা আমি দেশে থাকলে হয়তো ভালো বলতে পারতাম। তবে আমি মনে করি- তিনি আন্দোলনের যে ডাক দিয়েছেন, তখন পেট্রোলবোমায় সাধারণ মানুষ পুড়ে ছাই হওয়া, গাড়িতে ও বাড়িতে অগ্নিসংযোগ এসব কারণেও তার ওপর হামলা কারো ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হতে পারে। তবে একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাকে আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রটেকশন দেওয়ার দরকার ছিল। এর বাইরে আমি কিছু বলতে পারব না।

এছাড়াও সোনালী ব্যাংকের চেয়ারম্যানের পদত্যাগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, তিনি অসুস্থতাজনিত কারণে পদত্যাগ করেছেন। এখানে সরকার কিংবা দলীয় কোনো চাপ ছিল না।

এর আগে মিশনের আয়োজনে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও কমিউনিটি নেতাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন অর্থমন্ত্রী। সেখানে তিনি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থার চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি আগামী বাজেট নিয়ে সরকারের পরিকল্পনার কথাও তুলে ধরেন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশ মিশনের স্থায়ী প্রতিনিধি ড. একে আবদুল মোমেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন নিউইয়র্ক বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কন্সাল জেনারেল শামীম আহসান, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. সিদ্দিকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদসহ দলটির সহযোগী সংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতা।

আলোচনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বর্তমান সরকারের উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরেন। একইসঙ্গে আগামী বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বিভিন্ন কথা বলেন তিনি।

দেশের অর্থনীতি বর্তমানে বেশ ভালো রয়েছে দাবি করে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিএনপির অবরোধ-হরাতল, জ্বালাও পোড়ার মতো রাজনৈতিক সহিংসতায় আমাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। এসব সহিংস ঘটনা না ঘটলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়নে আরও এগিয়ে যেতো পারতো।

You Might Also Like