যাত্রাবাড়িতে গৃহবধূ ও গৃহকর্মী খুন

রাজধানীর যাত্রাবাড়িতে নিজ বাড়িতে এক গৃহবধূ ও তার গৃহকর্মী খুন হয়েছে। নিহতরা হলেন- সাবেক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রয়াত আবদুল কুদুসের স্ত্রী গৃহবধূ রওশন আরা  (৬৫) ও গৃহকর্মী কল্পনা আক্তার (১২)।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। ঘটনার কয়েকঘণ্টা পর শাহজাহানপুর থানা পুলিশ একজনকে আটক করে যাত্রাবাড়ী থানায় হস্তান্তর করেছে।

নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার দুপুরের পর যেকোনো সময় খুনিরা উত্তর যাত্রবাড়ীর কলাপট্টির ওই বাসায় ঢুকে দুইজনকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। তাদের গলাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হত্যাকাণ্ডের বিভিন্ন আলামত জব্দ করেছে। হত্যার নেপথ্য উদঘাটনে তদন্ত চলছে।

এলাকাবাসী জানায়, রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার উত্তর যাত্রাবাড়ীর  ৫৬ নম্বর বাড়িটি  পুলিশের অতিরিক্ত সুপার প্রায়াত আবদুল কুদ্দুসের। তিনি ১৯৯৬ সালে মারা গেছেন।  তিনতলা বাড়ির তৃতীয় তলায় এই ঘটনা ঘটে।

একই বাসায় দুইজনকে কুপিয়ে ও পরে জবাই করার ঘটনায় লোকজনের ভিড় জমে যায় ওই বাড়িতে। আত্মীয়-স্বজনদের কান্নায় আশপাশের বাতাস ভারি হয়ে ওঠে।

নিহত রওশন আরার তিন ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। তারা কানাডা ও আমেরিকা বসবাস করে। এর মধ্যে ছেলে কাজল কানাডায় এবং অন্যরা আমেরিকা বসবাস করে। তাদের গ্রামের বাড়ি ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জে। ঘটনায় জানাজানি হলে পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ, সিআইডি ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে যায়।

এদিকে ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর শাহাজানপুর থানা এলাকা থেকে খুনি সন্দেহে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আটক যুবকের নাম সাইদ হাওলাদার। তার বাবার নাম হারুন হাওলাদার। রাত ৯টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে শাজাহানপুর রেলওয়ে কলোনি এলাকা থেকে। কিছুক্ষণ পরই তাকে যাত্রাবাড়ি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। ওই থানায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

শাজাহানপুরে গ্রেফতারের প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রেলওয়ে কলোনির একটি গ্যারেজে সাইদ কাজ করেন। সন্ধ্যায় গ্যারেজে কাজে যোগ দেয়ার পর তার মন খারাপ দেখাচ্ছিল। সহকর্মীরা তার সঙ্গে কথা বলার এক পর্যায়ে পকেটে নগদ বেশ কিছু টাকা ও সোনার চেইন পেয়ে পুলিশে খবর দেয়।

 

You Might Also Like