ইসরায়েলে সাধারণ নির্বাচন : চাপে নেতানিয়াহু

বিশ্বের একমাত্র ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েলে আজ মঙ্গলবার সাধারণ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে। এই নির্বাচনে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও বিরোধীদলীয় জোট জায়োনিস্ট ইউনিয়নের নেতা আইজ্যাক হারজগ।

এবারের নির্বাচনে জয়ী হলে নেতানিয়াহু চতুর্থবারের মতো দেশটির প্রধানমন্ত্রী হবেন। তিনি নির্বাচনের আগের দিন সোমবারও বলেছেন, আবারও ক্ষমতায় এলে ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে মানবেন না তিনি। অন্যদিকে আইজ্যাক হারজগ বলেছেন, তিনি ফিলিস্তিনের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলবেন।

নেতানিয়াহুর ডানপন্থি লিকুদ পার্টি ও হারজগের মধ্য-বাঁমপন্থি জায়োনিস্ট ইউনিয়নের মধ্যে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে প্রাক-নির্বাচনী জরিপ থেকে আভাস পাওয়া গেছে। তবে জয়ের ব্যাপারে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন নেতানিয়াহু।

প্রায় ৬০ লাখ ইহুদি ভোটারের এই নির্বাচনে ভোট দেওয়ার কথা রয়েছে। ইসরায়েলের পার্লামেন্টের (নেসেট) ১২০ জন সদস্য নির্বাচিত হবেন এই ভোটের মাধ্যমে। মঙ্গলবার সকাল ৭টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে।

ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার কিছু সময় পরে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু ও তার পরিবারের সদস্যরা পশ্চিম জেরুজালেমে একটি কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন। জেরুজালেমে ভোট দিয়েছেন হারজগ।

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে অস্বীকার করে নির্বাচনী জনপ্রিয়তা কুড়ানোর চেষ্টা করে বেশি সফল হতে পারেননি নেতানিয়াহু। প্রাক-নির্বাচনী জরিপে দেখা গেছে, তার প্রতিদ্বন্দ্বী হারজগের জায়োনিস্ট ইউনিয়ন এই নির্বাচনে চারটি আসনে এগিয়ে থাকতে পারে। তাই যদি হয়, তাহলে হারজগই হবেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী।

চার বছর পরপর ইসরায়েলে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অবশ্য নেসেট সদস্যরা পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে নতুন নির্বাচনের ঘোষণা দিতে পারেন। তবে নেতানিয়াহু গত ডিসেম্বর মাসে তার মন্ত্রিসভার বিচারমন্ত্রী টিজিপি লিভনি ও অর্থমন্ত্রী ইয়াইর লাপিডকে বহিষ্কার করেন এবং নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা দেন। সে অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট শিমন পেরেজ এবং বহিষ্কৃত দুই মন্ত্রী লিভনি ও লাপিড হারজগের পক্ষ নিয়েছেন। তারা হারজগের জন্য প্রচারাভিযান চালিয়েছেন। এই অবস্থায় বেশ বৈরী পরিবেশে নির্বাচনী বৈতরণী পাড়ি দিতে হচ্ছে নেতানিয়াহুকে।

তথ্যসূত্র : বিবিসি, আলজাজিরা অনলাইন।

You Might Also Like