প্রাণঘাতী ক্লোরিন গ্যাস ব্যবহার করছে আইএস

ইরাকের কুর্দি কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করেছে, তাদের পেশমার্গা বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধের সময় বিষাক্ত রাসায়নিক অস্ত্র ক্লোরিন গ্যাস ব্যবহার করছে ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিরা।
কুর্দিস্তানের আঞ্চলিক নিরাপত্তা কাউন্সিল (কেআরএসসি) শনিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইইউ (ইউরোপীয় ইউনিয়ন) অনুমোদিত গবেষণাগারে জানুয়ারিতে উত্তর ইরাকে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহতের পোশাক ও ঘটনাস্থলের মাটি পরীক্ষা করে সেখানে উচ্চমাত্রায় ক্লোরিন গ্যাসের প্রমাণ পাওয়া গেছে। তারা রাসায়নিক অস্ত্র হিসেবে এটা ব্যবহার করছে। তবে নিরপেক্ষ সূত্র থেকে কুদিস্তানের এ অভিযোগ নিশ্চিত করা যায়নি।
বিবৃতিতে বলা হয়, আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত কুর্দি সেনাদের বিরুদ্ধে ইরাকের মসুল ও সিরিয়ার হাইওয়ের মাঝামাঝিতে ২০টি গ্যাসের কনটেইনার বোঝাই একটি লরি বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। ওই লরিতে ক্লোরিন গ্যাস ছিল, যেটা ইরাকি ও কুর্দি বাহিনীর বিরুদ্ধে তারা ব্যবহারের জন্য নিয়ে যাচ্ছিল।
অবশ্য, কুর্দিস্তানের নিরাপত্তা সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, বিস্ফোরক বোঝাই যানটি কুর্দি বাহিনীর রকেট হামলার পর বিস্ফোরিত হয়। এতে শুধু চালকই মারা যান।
কুর্দিস্তানের দাবি, এই বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থলে পৌঁছানো পেশমার্গা বাহিনীর সদস্যরা বমি, দুর্বলতা, মাথাঘোরা ও মুখ দিয়ে রক্ত ওঠা রোগে ভোগেন, যা ক্লোরিন গ্যাসের উপস্থিতি প্রমাণ করে।
ইরাকের তিকরিত শহরে ছড়িয়ে পড়া যুদ্ধেও ক্লোরিন গ্যাস ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে বলেও কেআরএসসির বিবৃতিতে বলা হয়েছে।
বিবৃতিতে আরো বলা হয়, একটি হামলার ভিডিওতে কমলা রঙের ধোঁয়া নির্গত হতে দেখা যায়, যেটা ক্লোরিন গ্যাস ব্যবহারের জ্বলন্ত প্রমাণ।

You Might Also Like