বাংলাদেশের তির তাক করা ভারতের দিকে !

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি ছিল আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নেওয়ার। সেটি হয়েছে। গ্রুপ পর্বের হিসাব-নিকাশ শেষে বাংলাদেশের সামনে এখন ভারত। আজ মাশরাফি বিন মুর্তজার বদলে অধিনায়কত্ব করা সাকিব আল হাসান জানালেন, এ আত্মবিশ্বাস কাজে লাগিয়ে শেষ আটের লড়াইয়ে দারুণ কিছুই করতে চায় বাংলাদেশ।
শ্রীলঙ্কা, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, আফগানিস্তান, স্কটল্যান্ড-সব দলই নাকানিচুবানি খেয়েছে কিউইদের কাছে। সব দলকেই অলআউট করেছে ব্রেন্ডন ম্যাককালামের দল। এ বিশ্বকাপে একমাত্র বাংলাদেশকেই অলআউট করতে পারেনি নিউজিল্যান্ড। ২৮ ফেব্র“য়ারি অকল্যান্ডে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটির পর বাংলাদেশকে হারাতে ঘাম ছুটে গেছে ভিভ রিচার্ডস, ইয়ান বোথাম, রিকি পন্টিংদের চোখে এবারের সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ডের।
ম্যাচ শেষে সাকিবও বললেন, ‘অবশ্যই সামনেও আমরা এ আত্মবিশ্বাস ধরে রাখব। আজ যেভাবে খেললাম, সেটা দারুণ। কোয়ার্টার ফাইনালে এটা ভীষণ সহায়তা করবে। তবে আমরা এখনো কোয়ার্টার ফাইনাল নিয়ে ভাবিনি। তবে ম্যাচটা দুর্দান্তই হবে। জানি, সেদিন গ্যালারিতে প্রচুর দর্শক ভারতকে উৎসাহ দেবে। তবে আমরাও প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নামব, কারণ এটা আমাদের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনাল।’
মেলবোর্নে ভারতের বিপক্ষে সেদিন ২০০৭ বিশ্বকাপের সুখস্মৃতি ফিরিয়ে নিয়ে আসতে পারবে বাংলাদেশ? সাকিব বললেন, ‘সত্যি বলতে কি, আমাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করা। এখন একটাই ম্যাচ, নিজেদের দিনে ভালো খেলতে পারলে যেকোনো কিছুই ঘটতে পারে। সেভাবেই নিজেদের তৈরি করব। আশা করি, দলের সবাই এ ম্যাচের জন্য তৈরি থাকবে।’
নেলসনে স্কটল্যান্ড ম্যাচের আগে সাকিব নিউজিল্যান্ডকে হারানোর পূর্বশর্ত হিসেবে ম্যাককালামকে তাড়াতাড়ি ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলেছিলেন। আজ সে লক্ষ্যেই নিউজিল্যান্ডের ইনিংসে শুরুতেই নিজেদের প্রধান শক্তি স্পিনের ব্যবহার করেছিল বাংলাদেশ। আক্রমণ শুরু হলো সাকিব-তাইজুল ইসলামের মাধ্যমে। স্পিনে কাবু হয়ে ৩৩ রানের মধ্যেই ফিরে গেলেন ‘ভয়ংকর’ ম্যাককালাম ও কেন উইলিয়ামসন।
বিশ্বকাপ ইতিহাসে এমন ঘটনা আগে ঘটেছেই মাত্র একটি। মিরপুরে ২০১১ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকানদের দিশেহারা করতে শুরুতেই দুই প্রান্তে ঘূর্ণি বিষ নিয়ে হাজির হয়েছিলেন কিউই স্পিনারদ্বয় ডেনিয়েল ভেট্টোরি ও নাথান ম্যাককালাম।
সামনের ম্যাচেও কি একই ‘ওষুধে’র ব্যবহার করবে বাংলাদেশ? সাকিব বললেন, ‘ওটা একটা পরিকল্পনা ছিল। বল পড়ে ধীরে ব্যাটে আসছিল, কিছু স্পিনও পাওয়া যাচ্ছিল। এতে পরিকল্পনাটা কাজ করেছিল। তবে অন্য খেলায় এ পরিকল্পনা কাজে না-ও আসতে পারে।’

You Might Also Like