মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশ ২৮৮

কী অসাধারণ ফর্মেই না আছেন মাহমুদউল্লাহ! নিজেকে যেন নতুন করেই চেনাচ্ছেন বাংলাদেশ দলের এই অলাউন্ডার। টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করে আজ হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ডের দিকে ছুঁড়ে দিয়েছেন বিরাট চ্যালেঞ্জ। মাহমুদউল্লাহর অনন্য, অনবদ্য, অপরাজেয় ১২৮ রানের ওপর ভর করে বাংলাদেশ স্কোরবোর্ডে তুলেছে ২৮৮ রানের দারুণ এক সংগ্রহ।
মাহমুদউল্লাহ দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করলেন। এর আগে ২০০৬ সালে শাহরিয়ার নাফীস জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পেয়েছিলেন টানা ​দুটি সেঞ্চুরি।
তাঁর ১২৮ রানের ইনিংসটি এসেছে ১২৩ বলে। ১২টি চার ও ৩টি ছয়ে সাজানো এই ইনিংসটি ছিল অসম্ভব দৃষ্টি নন্দন। বিশেষ করে ইনিংসের শুরুর দিকে ট্রেন্ট বোল্ট আর টিম সাউদির তোপ তিনি যেভাবে সৌম্য সরকারকে সঙ্গে নিয়ে সামাল দিলেন, তা ছিল এক কথায় অসাধারণ। অথচ, ইনিংসের শুরুতেই দুই-দুইবার জীবন পেয়েছিলেন তিনি। তাঁকে জীবন ফিরিয়ে দেওয়া যে এত দামী জিনিস হয়ে উঠবে, সেটা বোধহয় ভাবেননি নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম।
মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে আজ যে দুটি নাম উচ্চারণ করতে তা হল—সৌম্য সরকার ও সাব্বির রহমান। আজ হ্যামিল্টনে ভালো খেলতে পারেননি সাকিব আল হাসান, এমনকি মুশফিকুর রহিমও। কিন্তু মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে তরুণ সৌম্য যেভাবে শুরুর দিকে লড়েছেন, আর সাব্বির যেভাবে বাংলাদেশের ইনিংসটিকে পরিণতি দিলেন। তাতে মুগ্ধ হতেই হয়। সৌম্য সরকারের সঙ্গে শুরুতে মাহমুদউল্লাহর ৯০ রানের জুটি আর সাব্বির রহমানের সঙ্গে ষষ্ঠ উইকেটে তাঁর ৭৮ রানের দুটি জুটিই এবারের বিশ্বকাপে এই প্রথমবারের মতো বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে এখনো পর্যন্ত একমাত্র অপরাজিত দল নিউজিল্যান্ডকে।
সাকিব আউট হয়েছেন ২৩ রানে। ১৮ বলে ৩টি চারে করা এই ইনিংসটির সমাপ্তি যথেষ্ট হতাশাজনক। কোরি অ্যান্ডারসনের যে ওভারটিতে তিনি আউট হয়েছেন, সে ওভারে তাঁর ব্যাট থেকেই আসে দুটি বাউন্ডারি। অফ স্টাম্পের একেবারে বাইরের বলকে চার্জ করতে গিয়েই উইকেটরক্ষক লুক রনকির হাতে ধরা পড়েন তিনি। মুশফিক ফিরেছেন ১৫ রানে। তিনিও দারুণ একটি ইনিংসেরই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। তাঁর ইনিংসটিরও মৃত্যু-ঘন্টা বাজে ওই অ্যান্ডারসনের বলেই উইকেটের পেছনে রনকির হাতে ধরা পড়ে।
শুরুতে ট্রেন্ট বোল্ট ও টিম সাউদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে দিশেহারা বাংলাদেশকে প্রথম পথ দেখান সৌম্য সরকারই। সৌম্য নামতেই ভোজবাজির মতো পাল্টে গেল পরিস্থিতি। ট্রেন্ট বোল্ট আর টিম সাউদির বোলিং আক্রমণ যেভাবে বাংলাদেশ দলকে ভোগাচ্ছিল, সেই অবস্থা থেকে দলকে বের করে নিয়ে আসলেন সৌম্য। পাল্টা আক্রমণে চাপটা সরিয়ে নিলেন দলের কাঁধ থেকে। রানের চাকাকে করলেন সচল। একদিনের ক্রিকেটে নিজের প্রথম ফিফটিটি পেলেন আজ তিনি। যদিও ৫১ রানে তাঁর ইনিংসটির অপমৃত্যু ঘটেছে ড্যানিয়েল ভেট্টোরির বলে, কোরি অ্যান্ডারসনের হাতে ধরা পড়ে।
নিউজিল্যান্ডের পক্ষে দুটি করে উইকেট তুলে নিয়েছেন ট্রেন্ট বোল্ট, কোরি অ্যান্ডারসন ও গ্র্যান্ট এলিয়ট। একটি উইকেট ড্যানিয়েল ভেট্টোরির।

You Might Also Like