হবিগঞ্জে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকে যাত্রী উঠানোকে কেন্দ্র করে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে টেটাবিদ্ধসহ কমপক্ষে অর্ধশত আহত হয়েছে।

রোববার দুপুরে বানিয়াচং উপজেলার খাগাউড়া গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গুরুতর অবস্থায় ৩৪জনকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়া টেটাবিদ্ধ চারজনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ সময় একপক্ষ আরেকপক্ষের বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার খাগাউড়া গ্রামের লন্ডন প্রবাসী শামসু মিয়ার সঙ্গে পাশ্ববর্তী উজিরপুর গ্রামের কামাল মিয়ার মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রামের বিরোধ রয়েছে। রোববার উজিরপুর গ্রামের ফুল মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া স্থানীয় বাজারে ইজিবাইকে উঠতে যান। তখন খাগাউড়া গ্রামের আফতাব আলীর সঙ্গে তার কথাকাটাকাটি হয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এর জের ধরে উভয় গ্রামের লোকজন টেটা, বল্লম, ফিকলসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মুহূর্তের মধ্যেই সংঘর্ষ স্থানীয় বাজারসহ আশপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের তীব্রতা বাড়তে থাকলে ওই এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। খাগাউড়া গ্রামের লোকজন প্রতিপক্ষের ১৫/২০টি বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে। এ সময় কয়েকটি খড়ের স্তুপে অগ্নিসংযোগও করা হয়। দুইটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চালের বস্তাসহ মালামাল লুট করে নিয়ে যায় হাঙ্গামাকারীরা।

প্রায় দুই ঘন্টা স্থায়ী সংঘর্ষে হবিগঞ্জ-নবীগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে টেটাবিদ্ধসহ অন্তত অর্ধশত লোক আহত হয়। এদের মধ্যে জুয়েল মিয়া, নজরুল ইসলাম, মুহিত মিয়া, সবজুল মিয়া, সজিব মিয়া, কাউসার মিয়া, আব্দুল হালিম, মখসুদ মিয়া, আফতাব মিয়াসহ ৩৪ জনকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বানিয়াচং থানার ওসি নির্মলেন্দু চক্রবর্তী জানান, পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে। বিকেল ৪টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কেউ কোন অভিযোগ দায়ের করেননি বা কাউকে আটক করা হয়নি। অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

You Might Also Like