ধর্ষণের গুজবে মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা: প্রতিবাদে অসমে বনধ

নাগাল্যান্ডে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে জেল থেকে বের করে এনে গণপিটুনিতে মৃত্যুর ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে অসমে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে অসমে দুটি সংঠনের পক্ষ থেকে আগামী রোববার বনধের ডাক দেয়া হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার বিকেলে কয়েকশ’ উন্মুত্ত মানুষ ডিমাপুর সেন্ট্রাল জেলে হামলা চালায়। সেখানে  জেলখানার লোহার দরজা ভেঙে কথিত ধর্ষণে অভিযুক্ত শরিফউদ্দিন খানকে টেনে বের করে এনে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

 

এ ঘটনার প্রতিবাদে আজ (শনিবার) অসমের পাঁচটি সংগঠনের ডাকে কালা দিবস পালন করা হচ্ছে। প্রোগ্রেসিভ স্টুডেন্টস অ্যান্ড ইয়ুথ ফোরামের জেলা প্রেসিডেন্ট ইমদাদুর রহমান লস্কর এবং বরাক ডেভেলপমেন্ট পরিষদের প্রেসিডেন্ট হিজবুর রহমান লস্কর ডিমাপুরের ঘটনাকে বর্বরোচিত বলে আখ্যা দিয়েছেন। তাদের পক্ষ থেকে আগামীকাল রোববার ভোর ৫ টা থেকে ১২ ঘণ্টার হাইলাকান্দি জেলা বনধ ডাকা হয়েছে। হাইলাকান্দি জেলা সংখ্যালঘু সুরক্ষা মঞ্চের পক্ষ থেকে রোববারের বনধকে সমর্থন করা হয়েছে।

 

ডিমাপুরের ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবিতে প্রোগ্রেসিভ স্টুডেন্টস অ্যান্ড ইয়ুথ ফোরাম, বাঙালি ছাত্র ও যুব ফোরাম, যুব কংগ্রেস, এনএসইউআই, বরাক ডেভেলপমেন্ট  পরিষদ প্রমুখ সংগঠনের নেতৃত্বের পক্ষ থেকে শনিবার হাইলাকান্দিতে কালা দিবস পালনের ডাক দেয়া হয়েছে। এসব সংগঠনের পক্ষ থেকে আজই অসম ও নাগাল্যান্ডের গভর্নর বালকৃষ্ণ আচার্যের কাছে স্মারকপত্র দেয়া হবে।

 

এদিকে, বৃহস্পতিবার নাগাল্যান্ডে নাগাদের একটি গণসমাবেশে দাবি করা হয় অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি বাংলাদেশী। যদিও অভিযুক্ত ব্যক্তির বাড়ি ভারতের অসমে। নিহতের ভাই নাসির খান জানান, তার বাবা সিরাজউদ্দিন খান এইমস-এ চাকরি করার পর মারা গেছেন হয়েছেন। এক ভাই ইমামুদ্দিন খান সেনাবাহিনীতে চাকরিরত অবস্থায় মারা গেছেন। বর্তমানে জামালুদ্দিন খান নামে তাদের আর এক ভাই সেনাবাহিনীতে চাকরি করেন। নাসির খান এই ঘটনাকে চক্রান্ত বলে আখ্যা দিয়ে বলেছেন, তার ভাই ব্যবসায়ে উন্নতি করায় তাকে ব্লাকমেল করে গুজব রটিয়ে নাগা জনতাকে ক্ষিপ্ত করা হয়েছে।

 

এদিকে, বৃহস্পতিবার গণসমাবেশে বাংলাভাষী মুসলিম ব্যবসায়ীদের ট্রেড লাইসেন্স বাতিল করার দাবি ওঠে। এরপর উন্মত্ত জনতা হাজি মার্কেট, সুপার মার্কেট, পুরোনো বাজার এলাকায় মুসলিমদের দোকানে লুটপাট চালানো হয়। শরিফ উদ্দিনের দোকানটিও জ্বালিয়ে দেয় জনতা।

 

নৃশংস হত্যাকান্ডের জেরে জেলা প্রশাসক ওয়েজোপ কেনি এবং পুলিশ সুপার মেরান জামিরকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী টি আর জেলিয়াং।  তিনি দোষীদের গ্রেফতার করে যথাযথ শাস্তি দেয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

 

এদিকে অসমের বদরপুর ভাঙ্গাবাজার এলাকার বাসিন্দা ও নাগাল্যান্ডের পুরোনো  গাড়ির ব্যবসায়ী শরিফ উদ্দিন খানকে নৃশংসভাবে হত্যা করার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে নিহতের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি করেছে জমিয়তে উলামার অসম রাজ্য কমিটি। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুর রশিদ এই দাবি জানিয়েছেন।

 

আসমের এআইইউডিএফ এমপি বদরউদ্দিন আজমল ডিমাপুরের অপ্রত্যাশিত ও  দুর্ভাগ্যজনক ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির চেষ্টায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সমস্ত ঘটনার সিবিআই তদন্তের দাবিসহ নিহতের পরিবারকে ২৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের দাবি করেছেন। তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজুর কাছে জরুরিভিত্তিতে স্মারকপত্র পাঠিয়েছেন।

 

ডিমাপুরের হাসপাতাল সূত্রের বরাত দিয়ে একটি দৈনিক সংবাদপত্রের খবরে বলা হয়েছে, যাকে নিয়ে অভিযোগ সেই মেয়েটির আদৌ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি! ডাক্তারি পরীক্ষায় তার অভিযোগের যথার্থতা প্রমাণিত হয়নি।

You Might Also Like