১৫ বিশিষ্ট নাগরিককে ট্রাইব্যুনালের ক্ষমা

সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানের সাজার বিষয়ে ৪৯ বিশিষ্ট নাগরিকের বিবৃতি দেওয়ায় আদালত অবমাননার প্রেক্ষিতে ১৫ জনের নিঃশর্ত ক্ষমার আবেদন গ্রহণ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। বাকী ৩৪ জনের বিরুদ্ধে পরবর্তী আদেশের জন্য আগামী ৩ মার্চ নির্ধারণ করা হয়েছে।
সোমবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
এই ১৫ জন বিশিষ্ট নাগরিক হলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক, এম হাফিজ উদ্দিন, বদিউল আলম মজুমদার, রাশেদা কে চৌধুরী, ইমতিয়াজ আহমেদ, আমেনা মুহসিন, নাইলা খান, সাহনাজ হুদা, সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান, আসিফ নজরুল, জাকির হোসাইন, অরুপা রাহী, সাইনা আক্তার, ইলিরা দেওয়ান ও তাহমিমা আনাম।
এর আগে গত ২৭ জানুয়ারি ৪৯ জনের মধ্যে ১৫ বিশিষ্ট নাগরিক আইনজীবীর মাধ্যমে ট্রাইব্যুনালে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন।
আদালতে বিশিষ্ট নাগরিকদের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার নিহাদ কবির ও অ্যাডভোকেট ইদ্রিসুর রহমান।
এ ছাড়া গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফর উল্লাহ চৌধুরীসহ ১০ জন নিজের পক্ষে নিজেরাই ব্যাখ্যা দাখিল করেছেন।
গত বছরের ২০ ডিসেম্বর দৈনিক প্রথম আলোয় ‘বার্গম্যানের সাজায় ৫০ নাগরিকের উদ্বেগ’ শীর্ষক প্রতিবেদন ছাপা হয়। বিবৃতিদাতা ৫০ জনের মধ্যে এক নম্বরে ছিলেন শাহদীন মালিক। মানবাধিকারকর্মী খুশী কবির বিবৃতি থেকে তার নাম প্রত্যাহার করেন।
গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর ট্রাইব্যুনাল-২ দৈনিক প্রথম আলোকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ওই বিবৃতির অনুলিপি দাখিলের নির্দেশ দেন। আদেশে বিবৃতিদাতাদের ঠিকানা চান ট্রাইব্যুনাল। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শাহদীন মালিক ও মানবাধিকারকর্মী হানা শামস আহমেদের কাছে এসব ঠিকানা চাওয়া হয়। শাহদীন মালিক ও হানা শামস আহমেদ আজ ট্রাইব্যুনালে বিবৃতিদাতাদের ঠিকানা দাখিল করেন। এর পর আদালত ১৪ জানুয়ারি বিবৃতির ব্যাখ্যা চেয়ে আদেশ দেন।
প্রসঙ্গত, গত ২ ডিসেম্বর আদালত অবমাননার অভিযোগের মামলায় সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানের ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন ট্রাইব্যুনাল। অনাদায়ে তাকে ৭ দিনের কারাদন্ডের আদেশ দেওয়া হয়
বাংলাদেশে বসবাসরত ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান বর্তমানে ইংরেজি দৈনিক দ্য নিউএজের বিশেষ প্রতিনিধি। তিনি সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেনের জামাতা।

You Might Also Like