পুতিনের ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস!

বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী দেশের প্রধান তিনি। তার পেশিবহুল শরীর আর বজ্র-কঠিন ব্যক্তিত্বে মুগ্ধ বহু নারী। তার বিচক্ষণতায় প্রায়সই বেসামাল হয় দুনিয়ার তাবড় কূটনৈতিক চাল। এহেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধেই উঠেছে নারী নির্যাতনের অভিযোগ।

২০১৪ সালে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে ল্যুদমিলা পুতিনার বিবাহ বিচ্ছেদের খবর ফাঁস করে ক্রেমলিন। প্রাক্তন দম্পতির ঘনিষ্ঠজনদের বক্তব্য, স্ত্রীর সঙ্গে প্রায়ই কাজিয়ায় জড়িয়ে পড়তেন প্রেসিডেন্ট। এর জেরে অনেক সময় ল্যুদমিলাকে শারীরিক নিগ্রহ করতেও ছাড়তেন না পুতিন। আসলে ২০১১ সালে জার্মান গুপ্তচর সংস্থা বিএনডি প্রকাশিত এক রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে এই খবর প্রকাশ করে বৃটিশ পত্রিকা দ্য টেলিগ্রাফ। অভিযোগ, প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার আগে রুশ গুপ্তচর সংস্থা কেজিবি-র শীর্ষ কর্তা হিসেবে কর্মরত পুতিন বিবাহিত জীবনের শুরু থেকেই স্ত্রী ল্যুদমিলাকে মারধর করতেন।

এছাড়া পুতিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে যে কেজিবি-তে কর্মরত অবস্থায় তিনি অতিরিক্ত মদ্যপানে অভ্যস্ত ছিলেন। অভিযোগ, ১৯৮৫ থেকে ১৯৯০ কেজিবি-র কর্তা থাকাকালীন তীব্র আলস্যে আক্রান্ত হন তিনি। সঙ্গে বাড়তে থাকে মদ্যপানের হার। পাশাপাশি, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় মহিলাদের সঙ্গে অশালীন আচরণেও দড় হয়ে ওঠেন তিনি। জার্মান সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী, জরাকে বরাবর ঘৃণা করেন পুতিন। বার্ধক্য ঠেকাতে এর মধ্যে বেশ কয়েকবার অস্ত্রোপচার করে ত্বকের জৌলুস বজায় রাখতে প্রয়াসী হয়েছেন রুশ রাষ্ট্রপ্রধান।

গত মঙ্গলবার জার্মানির এক টিভি শো-য়ে পুতিন সম্পর্কে এমনই নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য পেশ করা হয়েছে। ‘পুতিন দ্য ম্যান’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রচারিত তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, জরা দূরে রাখতে কসমেটিক সার্জারি ছাড়াও প্রতিদিন সুষম আহার, নিয়মিত ব্যায়াম এবং দীর্ঘ সময় জুড়ে ঘুমে অভ্যস্ত হয়েছেন পুতিন। স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পরেও এতটুকু ভাটা পড়েনি নারীর প্রতি তার আকর্ষণে। তাই রোজই বাড়ছে নিজের যৌবন ধরে রাখার চেষ্টা।-ওয়েবসাইট

You Might Also Like